কলকাতা: সাইক্লোন ফণীর মোকাবিলা করতে প্রস্তুত রাজ্য৷ একের পর এক ট্যুইট করে রাজ্যবাসীকে সতর্ক থাকার পরামর্শ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের৷ এদিন ট্যুইট করে তিনি বলেন সাইক্লোনের জন্য নিরাপত্তার প্রয়োজনীয় ব্যবস্থা নিয়ে রাজ্য সরকার৷ অযথা আতঙ্কিত হওয়ার কিছু নেই৷

তিনি আরও জানান, যে কোনও প্রয়োজনে প্রশাসনকে পাশে পাবেন মানুষ৷ আগামী ৪৮ ঘন্টা সমস্ত রাজনৈতিক কর্মসূচি বাতিল করার কথাও ঘোষণা করেছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ শুক্রবার ঘাটাল এবং চন্দ্রকোণায় সভা হওয়ার কথা ছিল মুখ্যমন্ত্রীর৷ সেখান থেকেই বিরোধীদের উদ্দেশ্যে তিনি কী চ্যালেঞ্জ ছুঁড়ে দিতে আজ সেইদিকেই নজর ছিল অনেকের৷

তবে ওড়িশায় ফণীর আবির্ভাবে প্রচারের তাল কেটেছে৷ ইতিমধ্যেই যথাযথ পদক্ষেপ গ্রহণের নির্দেশ দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ ফণীর প্রভাবে বাংলাতেই সকাল থেকে মেঘলা আবহাওয়া৷

চলছে সপ্তদশ লোকসভা নির্বাচন৷ ইতিমধ্যেই চারটি দফায় রাজ্যে ভোটগ্রহণ পর্ব সম্পন্ন হয়েছে৷ বাকি আরও তিন দফা৷ একদিকে ভোট, অন্যদিকে প্রচার পর্ব দুইই চলছে তালে তাল মিলিয়ে৷

রাজ্যের শাসকদল এবং বিরোধী পক্ষরা দফায় দফায় সভা করছেন৷ তবে তারই মাঝে ছন্দপতন৷ পূর্বাভাসকে সত্যি করে ওডিশায় শুক্রবার সকালে আচড়ে পড়ল ফণী৷ ১৭৫-১৮০ কিলোমিটার প্রতি ঘন্টায় ঝড়ের গতিবেগ৷ এর প্রভাব পড়বে পশ্চিমবঙ্গেও৷

শুক্রবার দুপুরেই আঘাত হানবে ফণী। এমনটাই জানাচ্ছে আলিপুর আবহাওয়া দফতর। এখনও পর্যন্ত একইরকম শক্তি নিয়ে তা ধেয়ে আসছে পশ্চিমবঙ্গের দিকে। বুধবার রাতেই বাংলার দিকে বাঁক নিয়েছিল ফনী।

আজ শুক্রবার সকালে ৩ মে সেটি দক্ষিণ পুরীতে আছড়ে পড়ে। ৫ মে পর্যন্ত এই তাণ্ডব চলবে সাগর উপকূলবর্তী অঞ্চল এবং সংলগ্ন শহর গ্রামে। পয়লা মে , ৪০ থেকে ৫০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়া বয়ে যাবে দক্ষিণবঙ্গে। পাশাপাশি বজ্রবিদ্যুৎ সহ বৃষ্টিপাতের সম্ভাবনা আছে।

ফণীর প্রভাবে পশ্চিমবঙ্গের গাঙ্গেয় উপকূলবর্তী জেলায় ৫০ থেকে ৬০ কিলোমিটার বেগে ঝোড়ো হাওয়ার সঙ্গে ভারী বৃষ্টি হতে পারে। যা চলবে টানা ৩ তারিখ অবধি। এদিন পূর্ব ও পশ্চিম মেদিনীপুর এবং উত্তর দক্ষিণ ২৪ পরগণায় ৭০ থেকে ১১০ মিলিমিটার ভারী বৃষ্টিপাত হবে৷