স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: দলের স্বার্থে তিনি যে কতটা কঠোর হতে পারেন সেটা প্রিয় ভাইপোর ডানা ছেঁটে বুঝিয়ে দিলেন তৃণমূল সুপ্রিমো মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। শনিবার দলের রিভিউ কমিটির বৈঠকে অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়কে জেলার পর্যবেক্ষকের দায়িত্ব থেকে সরিয়ে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন তিনি বার্তা দিলেন, পারফরমেন্স ছাড়া তিনি কিছুই বোঝেন না।

বাঁকুড়া, পুরুলিয়া মূলত জঙ্গলমহলের এই দুটি জেলার পর্যবেক্ষক ছিলেন অভিষেক। এছাড়াও দুই মেদিনীপুরও তিনি দেখতেন। বাঁকুড়ার দুটি কেন্দ্রেই হেরে গিয়েছে তৃণমূল। বাঁকুড়ায় পরাজয় হয়েছে তৃণমূলের বর্ষীয়ান নেতা সুব্রত মুখোপাধ্যায়ের। আর বিষ্ণুপুরে তো প্রচারে ঢুকতে না পেরেও জিতে গিয়েছেন বিজেপি প্রার্থী সৌমিত্র খাঁ। মেদিনীপুরেও জয়ী হয়েছেন দিলীপ ঘোষ।

দুই জেলাতেই তৃণমূলের এই ভরাডুবি দেখে ভীষন রুষ্ট হয়েছেন দলনেত্রী।

এদিন তিনি জানিয়েছেন, এবার থেকে অভিষেক ভোটার লিস্ট ও অন্যান্য কো-অর্ডিনেশনের কাজ করবে। আর জঙ্গলমহলের দায়িত্ব দিয়েছেন শুভেন্দু অধিকারীকে।

এতদিন দলে ভাইপো অভিষেকের সমস্ত কর্তৃত্বের উপর শিলমোহর ছিল পিসি মমতার। তাঁর সবুজ সংকেতেই তৃণমূলের সেকেন্ড ইন কমান্ড হয়ে উঠছিলেন অভিষেক। তৃণমূল সূত্রের খবর, অভিষেকের উপর দলের একটা অংশ চরম ক্ষুব্ধ। ভোটের ফলাফলেও তার প্রভাব পড়েছে বলে দলের অনেকেই মনে করছেন। যার আঁচ পাচ্ছেন বিচক্ষণ মমতাও। ‘ভাঙবো তবু মচকাব না’, উপরে এমন ভাব দেখালেও সংগঠনে বড়সড় রদবদল করে মমতা ফের বুঝিয়ে দিলেন তাঁর অজানা কিছুই নয়।

অভিষেকের বাড়বাড়ন্ত দেখেই দল ছেড়েছিলেন মুকুল। দল ছেড়েছেন সৌমিত্র খাঁ’ও। আর তাতেই লাভবান হয়েছে রাজ্য বিজেপি। তাই আগামিদিনে যাতে ফের এমন কোনও কোপ এসে না পড়ে, তার জন্যই হয় সাবধানী পদক্ষেপ নিলেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।