নয়াদিল্লি: অপেক্ষার অবসান ঘটিয়ে ভারতীয় বায়ুসেনার অভিযান নিয়ে শুরু হল রাজনীতি। এয়ার স্ট্রাইকের সাফল্য নিয়ে প্রশ্ন তুলে দিলেন তৃণমূল কংগ্রেস নেত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

পুলওয়ামার জঙ্গি হামলার ১২ দিনের মাথায় পাকিস্তানের মাটিতে পালটা প্রত্যাঘাতে হানে ভারতীয় বায়ুসেনা। ১২টি মিরাজ-২০০০ যুদ্ধ বিমানের সাহায্যে পাক অধিকৃত কাশ্মীরের একাধিক জঙ্গি ঘাঁটি গুঁড়িয়ে দিয়ে আসা হয়েছে বলে জানায় কেন্দ্র।

 

ভারতীয় বায়ু সেনার সাফল্যকে কুর্নিশ জানিয়ে ওই দিন সকালের ট্যুইট করেন মমতা। বায়ুসেনাকে তথা ইন্ডিয়ান এয়ার ফোর্সেকে তৃণমূল নেত্রী বলেন, ‘ইন্ডিয়াজ অ্যামাজিং ফাইটার্স।’

আরও পড়ুন- কাশ্মীরের জন্য কেউ কিছু করেনি, বিস্ফোরক তৃণমূল সাংসদ

এদিন কেন্দ্রের বিজেপি সরকারকে আক্রমণ করতে গিয়ে মমতা বন্দ্যোপাধ্যায় বলেন, “বায়ুসেনার অভিযানের বিষয়ে প্রধানমন্ত্রী কোনও সর্বদল বৈঠক ডাকেনি। আমরা সমগ্র অভিযান সম্পর্কে বিস্তারিত জানতে চাই।” একই সঙ্গে তিনি আরও বলেন, “বায়ুসেনা কোথায় বোম ফেলল? কত জন মারা গেল? বিভিন্ন সংবাদ মাধ্যমে বিভিন্ন তথ্য পরিবেশিত হচ্ছে।”

কিন্তু দিন দুই পরেই হয়ে গেল ভোলবদল। জাতীয় রাজধানী দিল্লিতে দাঁড়িয়ে সাংবাদিক সম্মেলন করে মমতা বললেন, “এয়ার স্ট্রাইক হয়েছে। কিন্তু সেই ঘটনায় কত জন মারা গেছে কেউ জানে না।” বিজেপির বিরুদ্ধে সেনাবাহিনীকে রাজনীতি করার অভিযোগ তুলে মমতা বলেন, “আমরা সবাই দেশকে ভালবাসি। কিন্তু সেনা জওয়ানদের নিয়ে আমরা রাজনীতি করি না। জওয়ানেরা আমাদের গর্ব।”

আরও পড়ুন- শাসক দলে যোগদান সিমিএমের প্রাক্তন গ্রাম পঞ্চায়েত প্রধান

এর আগে ২০১৬ সালের সেপ্টেম্বর মাসে উরি সেনা ছাউনিতে জঙ্গি হামলার পরে অধিকৃত কাশ্মীরে হামলা চালায় ভারতীয় সেনা। সেই সার্জিক্যাল স্ট্রাইকের সত্যতা নিয়ে প্রশ্ন তুলেছিলেন দিল্লির মুখ্যমন্ত্রী অরভিন্দ কেজরিওয়াল। যা নিয়ে তীব্র বিতর্ক হয়েছিল। এবার এয়ার স্ট্রাইকের ক্ষেত্রেও শুরু হল সেই একই বিতর্ক। যা শুরু করলেন পশ্চিমবঙ্গের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।

আরও পড়ুন- বুধবার সকালে ভারতের দিকে এগিয়ে এসেছিল ২০টি পাক যুদ্ধবিমান

অন্যদিকে এদিনই পাকিস্তানের হেফাজতে থাকা অভিনন্দন ভার্তামানকে মুক্তি দেওয়ার কথা ঘোষণা করেছেন পাক প্রধানমন্ত্রী ইমরান খান। ওই দেশের সংসদে দাঁড়িয়ে প্রধানমন্ত্রী নিজে এই মন্তব্য করেছেন। সেই বিষয়টি নিয়েও ট্যুইট করেছেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। তৃণমূল নেত্রী লিখেছেন, “তাঁর পরিবারের সকল সদস্য এবং সকল দেশবাসীর সঙ্গে আমরা পাইলট অভিনন্দনের সুস্থ উপায়ে দেশে ফেরার জন্য অধীর আগ্রহে অপেক্ষা করছি।”