ফাইল ছবি

স্টাফ রিপোর্টার, মেদিনীপুর: একেবারে ইটের বদলা পাটকেল। দুপুরেই তূণমূলের ছেলেদের কুকুরের মতো মারার হুমকি দিয়েছিলেন ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষ। বিকেল না গড়াতেই একদা ঘনিষ্ঠকে মমতার জবাব, ‍”সীমা লঙ্ঘন করলে এসএমএস ফাঁস করে দেব‍”

প্রাক্তন আইপিএস ভারতীকে বাগে আনতে এবার সরাসরি এসএমএস ফাঁসের দাওয়াই শুনিয়ে রাখলেন মুখ্যমন্ত্রী। এদিন ঘাটালের তৃণমূল প্রার্থী দেবের হয়ে প্রচার ব়্যালিতে অংশ নেন তৃণমূল সুপ্রিমো। করেন সভা। সেখানেই তিনি বলেন, ‍“আমার মুখটা খোলাবেন না।পুলিশে চাকরি করার সময় আপনি যে এসএমএসগুলো আমাকে পাঠিয়েছিলেন, সেগুলো যদি পাবলিক করে দিই, তাহলে আমাকে আর মানুষকে কিছু বলতে হবে না।”

এখানেই থেমে না থেকে মুখ্যমন্ত্রীর সংযোজন, “না।আমরা যদি চাইতাম, আপনার বিরুদ্ধে যা কেস আছে আপনাকে গ্রেফতার করতে পারতাম। সুপ্রিম কোর্ট মাত্র একটা কেসে আপনাকে গ্রেফতার করতে নিষেধ করেছে। ওই কেস ছাড়াও আপনার বিরুদ্ধে অনেকগুলো কেস আসে। আমরা ভদ্রতা করে আপনাকে ভোটে দাঁড়াতে দিয়েছি। এমন কোনও কথা বলবেন না, যা সব সীমা লঙ্ঘন করে।”

এরপরই রাজ্য রাজনীতিতে জল্পনা তুঙ্গে। কোন ফাইলের কথা বললেন মুখ্যমন্ত্রী। পশ্চিম মেদিনীপুরের পুলিশ সুপার থাকাকালীন মুখ্যমন্ত্রী ও ভারতী ঘোষের ঘনিশ্টতা সর্বজন বিধিত। জঙ্গলমহলের মা বলেও মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে সম্বোধন করেছিলেন ভারতী। বলা হত বিরোধী দলের বহু গোপন রিপোর্ট মুখ্যমন্ত্রীর কাছে দিতেন ভারতী। যার মধ্যে নাম রযেছে বহু বিজেপি নেতার। যা ফাঁস হয়ে গেলে অস্বস্তিতে পড়তে পারেন ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী। তাই ভারতীকে খান্ত করতে গোপন সেইসব ফাইলকেই হাতিয়ার করেছেন তৃণমূল নেত্রী বলে মনে করছে রাজনৈতিক বিশ্লেষকরা।

শুধু ফাইল ফাঁসের হুঁশিযারিই নয়। এদিন প্রার্থী হওয়া নিয়েও ভারতী ঘোষকে কটাক্ষ করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। প্রশ্ন তোলেন প্রাক্তন আইপিএসের যোগ্যতা নিয়ে। তৃণমূল নেত্রী বলেন, “গ্রামসভার ভোটে দাঁড়ানোর যোগ্যতা নেই ঘাটালের বিজেপি প্রার্থী ভারতী ঘোষের। তিনি আবার দেবের বিরুদ্ধে লোকসভা ভোটে প্রার্থী হয়েছেন।”

প্রাক্তন আইপিএস, বর্তমানে বিজেপির ঘাটালের প্রার্থীর এই মন্তব্যকে কেন্দ্র করে শুরু হয়েছে শাসক বিরোধী তরজা। ইতিমধ্যেই কমিশনে যাওয়ার কথা বলেছেন তৃণমূল মহাসচিব পার্থ চট্টোপাধ্যায়। পদক্ষেপ করেছে কমিশনও। ভারতী ঘোষের মন্তব্যের ভিডিও ফুটেজ তলব করা হয়েছে। তবে জমে গিয়েছে ভোটের লড়াই। একদা ‘মা-মেয়ের’ হুঁশিয়ারিতে ঘাটাল যেন রাজনীতির তপ্ত কড়াই।