নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: অধীর তিরে বিদ্ধ তৃণমূল৷ ভোট কুশলী প্রশান্ত কিশোরের সঙ্গে কথা হয়েছে তৃণমূল নেত্রীর৷ সেই বৈঠককেই কটাক্ষ করেছেন বহরমপুরের সাংসদ৷ তাঁর মতে ভোটে সাফল্যের মুখ দেখতে ‘দিদির ভরসা প্রশান্ত৷’

শনিবার ফেসবুকে পোস্ট করেন প্রাক্তন প্রদেশ কংগ্রেস সভাপতি৷ সেখানেই তিনি লেখেন, ‘বিপদে পড়ে হিন্দু বলে ভগবান ভরসা, মুসলিম বলে এলাহী ভরসা, খ্রিস্টান বলে যীশু ভরসা, কংগ্রেস বলে জনগণ ভরসা, আর মমতা ব্যানার্জি বলেন প্রশান্ত ভরসা!’

লোকসভা ভোটের আগে বাংলায় ৪২ এ ৪২ এর ডাক দেন তৃণমূল নেত্রী৷ বাস্তবে, গেরুয়া ঝড়ে মমতার স্বপ্ন অঙ্কুরও ফোটাতে ব্যর্থ৷ নিজের দলেরই আসন সংখ্যা কমেছে জোড়াফুল শিবিরের৷ যা নিয়ে ফেসবুকে তৃণমূল নেত্রীকে টিপ্পনি কাটতে ছাড়েননি প্রদেশ কংগ্রেসের এই ডাকাবুকো নেতা৷ তিনি লেখেন, ‘৪২ এ ৪২ টা আসন দখল করতে না পেরে অশান্ত ‘দিদি’র মন শান্ত করতে বাংলায় ‘প্রশান্ত’র আগমণ!!!’

বৃহস্পতিবার বিকেলে নবান্নে মুখ্যমন্ত্রীর সঙ্গে প্রায় চল্লিশ মিনিট কথা হয় প্রচার কুশলী প্রশান্ত কিশোরের। আলোচনায় উপস্থিত ছিলেন তৃণমূল কংগ্রেসের সাসংদ তথা মমতার ভাইপো অভিষেক বন্দ্যোপাধ্যায়ও। তৃণমূল সূত্রে খবর, মমতা সঙ্গে প্রশান্ত কিশোরের আলোচনার বিষয়বস্থু ছিল লোকসভা ভোটে তৃণমূলের খারাপ ফল৷ প্রশান্ত কিশোর আসন ধরে ধরে তাঁর মতামত ব্যাখ্যা করেন মমতার কাছে৷

আরও পড়ুন: মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশই সার, বাঁকুড়াজুড়ে গেরুয়া বিজয় মিছিল

জানা যায় বাংলায় গেরুয়া বাহিনীকে ঠেকাতে তৃণমূলের হয়ে এবার কাজ করতে পারেন প্রশান্ত কিশোর৷ উল্লেখ্য, ভোট কুশলি প্রশান্ত ২০১৪ সালে মোদীর নির্বাচনী প্রচারে নজর কেড়েছিলেন ২০১৮ সালের সেপ্টেম্বরে তিনি জেডিইউ-তে যোগ দেন এবং এক মাস পরে সে দলের জাতীয় সহ সভাপতি হন। ২০১৫ সালের বিহার বিধানসভা ভোটে নীতীশ কুমারের নির্বাচনী প্রচারের কৌশল রচনা করেছিলেন তিনি। এবার ওয়াইএসআর কংগ্রেসের চাণক্য রূপে কাজ করেও সাফল্য এনে দেন৷

রাজনৈতিক মহলের প্রশ্ন, তাহলে কী মোদী ক্যারিশ্মর কাছে ম্লান মমতা ম্যাজিক৷ নিজের প্রচার কৌশলে আর ভরসা নেই দিদির৷ নাকি, ভাইদের দিয়ে যে বিজেপির মতো দলের প্রচার লঘু করা যাবে না তা ক্রমশ স্পষ্ট হচ্ছে তৃণমূল নেত্রীর কাছে৷ তাই প্রচার থেকে যুদ্ধ জয়, পেশাদারিত্বেই ভরসা রাখার পক্ষপাতী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷

আর তৃণমূল সুপ্রিমোর এই ‘ভরসা’ নিয়েই সমালোচনায় মুখর অধীর চৌধুরী৷