শ্রীরামপুর: রামমন্দির নিয়ে বিজেপিকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ কটাক্ষ করে বলেন, ওরা রাম নাম অনেক করেছে৷ কিন্তু পাঁচ বছরে একটা রামমন্দিরও বানাতে পারল না৷

এদিন শ্রীরামপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়ের সমর্থনে হাওড়ার জগৎবল্লভপুরে নির্বাচনী জনসভা করেন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ সেখানে প্রধান প্রতিপক্ষ হিসাবে বেছে নেন বিজেপিকে৷ শুরু থেকে শেষ অবধি বিজেপিকে তুলোধনা করেন৷ মমতা বলেন, ‘‘বিজেপিকে এক ইঞ্চিও জমিও ছাড়ব না৷ ওরা রাম নাম তো অনেক করেছে। পাঁচ বছরে একটা রামমন্দিরও বানাতে পারেনি। মা দূর্গা অসুরকে বিনাশ করেছিলেন। এই বিজেপিরও বিনাশ হবে।’’

বিজেপির বিরুদ্ধে প্রতিশ্রুতি পূরণ না করার অভিযোগ তোলেন৷ মমতা বলেন, ‘‘গরিব বেকারদের চাকরি দেবে বলেছিল৷ সেই প্রতিশ্রুতি পালন করেনি৷ গরিবদের অ্যাকাউন্টে টাকা দেবে বলেছিল৷ সেই প্রতিশ্রুতিও পূরণ করেন৷ কালো টাকা ফেরাবে বলেছিল৷ সেটাও আনতে পারেনি৷’’ মোদী ও অমিত শাহ রাজ্যে এসে মিথ্যা প্রচার করায় ক্ষোভে ফেটে পড়েন মমতা৷ বলেন, ‘‘বাংলায় প্রচারে এসে বলছে আমরা নাকি দূর্গাপূজা করতে দিইনি। সরস্বতী পুজো করতে দিইনি। সব মিথ্যে কথা। মোদী এবং তাঁর সাইন বোর্ড অমিত শাহ এই মিথ্যে বলছে। মোদীর মতো এত মিথ্যাবাদী প্রধানমন্ত্রী আগে দেখিনি। এখানে রাম বাম আর কংগ্রেস এরা সব এক হয়েছে। এদের তিনজনকেই বিদায় দিন।’’

রাজনৈতিকভাবে আক্রমণের পাশাপাশি এদিন মমতা তাঁর বক্তব্যে রাজ্যের উন্নয়নের খতিয়ান তুলে ধরেন। হাওড়ায় কী কী কাজ হয়েছে বক্তব্যে তাও উল্লেখ করেন। এই নির্বাচনী সভায় প্রার্থী কল্যাণ বন্দ্যোপাধ্যায়, মন্ত্রী অরূপ রায়, রাজীব বন্দ্যোপাধ্যায়, বিধায়ক আবদুল গণি, স্নেহাশিস চক্রবর্ত্তী, যুব সভাপতি অনুপম ঘোষ প্রমুখ নেতৃবৃন্দ উপস্থিত ছিলেন।