বালুরঘাট: দীর্ঘ ১৪ মাস পরে ফের দলের বর্ষীয়ান নেতা দক্ষিণ দিনাজপুরের প্রাক্তন সভাপতি বিপ্লব মিত্রকে ফিরিয়ে নিচ্ছেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। সবকিছু ঠিকঠাক থাকলে বৃহস্পতিবার দুপুরে কলকাতায় তৃণমূল ভবনে তাঁর হাতে দলীয় পতাকা তুলে দেওয়া হবে। শুধু বিপ্লব মিত্রকেই নয়, একইসঙ্গে তাঁর ভাই তথা গঙ্গারামপুর পুরসভার প্রাক্তন চেয়ারম্যান প্রশান্ত মিত্র ও আরও কয়েকজনকেও দলে ফিরিয়ে নেওয়া হচ্ছে বলে তৃণমূল সূত্রে জানা গিয়েছে।

২০১৯-এর লোকসভা নির্বাচনের আগে থেকেই অর্পিতা ঘোষের সঙ্গে বিরোধ বাধে বিপ্লব মিত্রের। অর্পিতাকে দ্বিতীয়বার লোকসভা নির্বাচনের প্রার্থী করা নিয়ে শুরু থেকেই অসম্মতি জানিয়ে আসছিলেন তৎকালীন দলীয় সভাপতি বিপ্লব মিত্র।

বর্ষীয়ান এই নেতা তাঁর রাজনৈতিক অভিজ্ঞতার নিরিখে সেই স্পষ্ট ভাবে জানিয়ে দিয়েছিলেন যে অর্পিতা ঘোষকে পার্টি করা হলে পরাজয় নিশ্চিত। তারপরেও দল অর্পিতা ঘোষকে সেবারে নির্বাচনের টিকিট দেয়।

যথারীতি নির্বাচনের ফলাফলে বালুরঘাটে বিজেপির কাছে পরাজিত হতে হয় তৃণমূলকে। যে হারে এর সমস্ত দায় চাপানো হয় বিপ্লব মিত্র এর উপরে। তার পরেই তাকে জেলা সভাপতির পদ থেকে অপসারণ করা হলে ২০১৯  সালের ২৪ জুন বিপ্লব মিত্র দিল্লিতে বিজেপির কেন্দ্রীয় কার্যালয়ে গিয়ে গেরুয়া শিবিরে যোগ দেন। রাজ্য রাজনীতিতে মুকুল ঘনিষ্ঠ হিসেবেই পরিচিত ছিলেন তিনি। সেইসময় মুকুলের হাত ধরেই বিজেপিতে যান তিনি।

তিনি শুধু নিজেই নন। সেদিন তিনি দক্ষিণ দিনাজপুর জেলাপরিষদের সভাধিপতি লিপিকা রায় সহ দশজন সদস্য বিজেপিতে নাম লিখিয়েছিলেন।

যদিও বিজেপিতে যোগদানের কয়েকদিনের মধ্যেই লিপিকা রায় সহ বেশ কয়েকজনকে ফের তিন সদস্য তৃণমূলে যোগ দিতে একপ্রকার বাধ্য করা হয়। বিপ্লব মিত্র বিরোধী শিবিরে যোগ দেওয়ায় তাঁর ভাই প্রশান্ত মিত্রকে গঙ্গারামপুর পুরসভার চেয়ারম্যানের পদ থেকে অপসারণ ও দল থেকে বহিষ্কারও করেছিলেন পরবর্তী দলীয় সভাপতি অর্পিতা ঘোষ।

সম্প্রতি জেলায় তৃণমূলের সংগঠনের অবস্থার অবনতির কারণে দিন কয়েক আগে অর্পিতা ঘোষকে সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে রাজ্য কমিটির কনভেনর করেন মমতা বন্দোপাধ্যায়।

প্রাক্তন মন্ত্রী বালুরঘাটের শঙ্কর চক্রবর্তীকে জেলা কমিটির চেয়ারম্যান ঘোষণা করে সে জায়গায় দায়িত্ব দেন গঙ্গারামপুরের বিধায়ক গৌতম দাসকে। একুশের বিধানসভা নির্বাচনে দক্ষিণ দিনাজপুরের সবকটি আসনের দখল নিতে এবার দলের প্রতিষ্ঠা লগ্নের নেতা বিপ্লব মিত্রকে ফিরিয়ে আনতে চলেছেন।

পপ্রশ্ন অনেক: একাদশ পর্ব

লকডাউনে গৃহবন্দি শিশুরা। অভিভাবকদের জন্য টিপস দিচ্ছেন মনোরোগ বিশেষজ্ঞ।