ফাইল ছবি।

কলকাতা: নেতাজি জন্মজয়ন্তী অনুষ্ঠানে ‘জয় শ্রী রাম’ স্লোগান, ও মুখ্যমন্ত্রীর তীব্র প্রতিবাদে রাজনৈতিক মহলও সরগরম। খোদ প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই ভিক্টোরিয়া মেমোরিয়াল হলের বিশেষ অনুষ্ঠানে বিজেপির রাজনৈতিক স্লোগান উঠতেই ভাষণ বয়কট করেন অপমানিত মুখ্যমন্ত্রী।

এই রাজনৈতিক বিতর্কে ‘শত্রু’ বামেদের পাশে পেলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। অনুষ্ঠান শেষের পর বামফ্রন্ট চেয়ারম্যান বিমান বসু প্রতিক্রিয়া দিয়েছেন। তিনি বলেন, শনিবার কলকাতায় প্রধানমন্ত্রীর উপস্থিতিতেই সুভাষচন্দ্র বসুর জন্মবার্ষিকী পালনের সরকারি অনুষ্ঠানে যে স্লোগান তোলা হয়েছে তা অনুচিত।

বিমান বসু জানান, মুখ্যমন্ত্রীর ভাষণ দেওয়ার সময় এই অন্যায় কাজ করা হয়েছে। রাজ্যের পক্ষে মর্যাদাহানিকর কাজ করা হয়েছে। এই ঘটনা নিন্দনীয়। তবে সেই সঙ্গে মুখ্যমন্ত্রীর প্রতি কটাক্ষ করেছেন বিমান বসু।

তিনি জানান, মুখ্যমন্ত্রীকেও মনে রাখতে হবে সরকারি অনুষ্ঠানকে রাজনৈতিক অনুষ্ঠানে পরিনত করা ঠিক নয়। বামেদের অনেক আগে থেকেই অভিযোগ, বিভিন্ন সরকারি অনুষ্ঠানকে মুখ্যমন্ত্রী তাঁর দল তৃণমূল কংগ্রেসের অনুষ্ঠানে পরিনত করে।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।