স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: লোকসভা নির্বাচনে জয় না পেলেও অর্পিতা ঘোষের উপরেই ভরসা শাসক দলের। আর এই ভরসার জেরেই একের পর এক গুরুত্বপূর্ণ পদের দায়িত্বে তাঁকেই বসিয়েছেন রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবারও তাঁর মুকুটে আরও এক পালক গুঁজে দিলেন মুখ্যমন্ত্রী। এবার আইসিডিএস’এর রিক্রুটমেণ্ট বোর্ডের চেয়ারম্যানের দায়িত্বে। একের পর পদের দায়িত্ব পাওয়ায় তাঁর অনুগামীদের মধ্যে খুশির জোয়ার।

উল্লেখ্য, প্রশাসক বসিয়ে বালুরঘাট পুরসভা চালানো হলেও এখনই নির্বাচনের পথে যাচ্ছে না রাজ্য সরকার। পুরসভায় নির্বাচনের দাবিতে বিরোধীরা একাধিকবার আন্দোলন চালিয়ে আসলেও রাজ্য সরকার তাতে কোন আমলই দিতে রাজি নয়। উলটে বালুরঘাট পুরসভায় শাসক দলের কর্তৃত্ব কায়েম রাখতে তিন সদস্যের বোর্ড গঠন করেছে সরকার। পুরসভা সূত্রে জানা গিয়েছে প্রশাসক তথা সদর মহকুমাশাসক ইশা মুখার্জীকে চেয়ারম্যান সেই সঙ্গে তৃণমূল সভাপতি অর্পিতা ঘোষ ও দলীয় আরেক নেতা শংকর চক্রবর্তীকে বোর্ডের সদস্য করা হয়৷

পড়ুন: CPIM সাংসদকে দলত্যাগের আহ্বান জানিয়ে বিতর্কে শাহ

প্রাক্তন কাউন্সিলর তথা আরএসপি নেতা শাসকদলের নিজেদের দুইজনকে সামিল করিয়ে বোর্ড ঘোষনার এই সীদ্ধান্তকে অগণতান্ত্রিক বলে জানান। তিনি সরাসরি অভিযোগ করে বলেন, বিগত তৃণমূল বোর্ডের সময়ে পুরসভার কোন উন্নয়নই হয়নি। উলটে বিভিন্ন প্রকল্পে ব্যাপক কাটমানী দুর্নীতি অভিযোগও রয়েছে তৃণমূল কাউন্সিলরদের একাংশের বিরুদ্ধে। সেই সমস্ত ঘটনাগুলি নিয়ে সাধারণ মানুষের মধ্যে ব্যাপক ক্ষোভের কথা আঁচ করতে পেরেই নির্বাচন চাইছে না তৃণমূল বলেও তিনি অভিযোগ করেন৷

গত নির্বাচনে অর্পিতা ঘোষ হেরে যাওয়ার ঘটনায় বিপ্লব মিত্রকে দায়ি করে সভাপতির পদ থেকে সরিয়ে দেন মমতা বন্দোপাধ্যায়। সে জায়গায় অর্পিতাকেই দায়িত্ব সঁপে দেন দলনেত্রী। এছাড়া উত্তরবঙ্গ উন্নয়ন পর্ষদের ভাইস চেয়ারম্যান হিসেবেও এখানে অর্পিতা ঘোষকে বসানো হয়েছে। অন্যদিকে জেলার রোগী কল্যাণ সমিতিরও চেয়ারম্যানও আগে থেকে তাঁকেই করা ছিল। এবার আইসিডিএস। এবিষয়ে অর্পিতা ঘোষ জানিয়েছেন যে, দক্ষিণ দিনাজপুর তাঁর প্রাণ। এই জেলার উন্নতির জন্য নেত্রী যে দায়িত্বই দিবেন সেটাই তিনি স্বচ্ছতার সঙ্গে পালন করবেন।