কলকাতা: রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের সঙ্গে সাক্ষাৎ মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের। সোমবার দুপুরে রাজভবনে গিয়ে রাজ্যপালের সঙ্গে দেখা করেন মুখ্যমন্ত্রী। ঘণ্টাখানেক বৈঠকের পর রাজ্যপালের টুইট, ‘মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়ের সঙ্গে ঘণ্টাখানেক দারুণ কথা হল’।

সোমবার দুপুরে রাজভবনে যান মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এর আগেও বহুবার বৈঠকের জন্য মুখ্যমন্ত্রীকে ডেকেছিলেন রাজ্যপাল। কিন্তু রাজভবনে যাননি মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। এদিন মুখ্যমন্ত্রী ও রাজ্যপালের মধ্যে ঠিক কী কথা হয়েছে সেব্যাপারে স্পষ্ট করে কিছু জানাতে রাজি হননি কোনওপক্ষই। তবে সূত্র মারফত জানা গিয়েছে, এদিন রাজ্যপালের সঙ্গে বিধানসভায় বিল পাশ-সহ একাধিক ইস্যুতে কথা হয়েছে মুখ্যমন্ত্রীর।

পশ্চিমবঙ্গে রাজ্যপাল হিসেবে দায়িত্ব নিয়ে আসার পর থেকেই রাজ্য সরকারের সঙ্গে বিভিন্ন বিষয়ে মতবিরোধ তৈরি হয়েছে রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। রাজ্যের শিক্ষা, স্বাস্থ্য, আইনশৃঙ্খলার পরিবেশ নিয়ে প্রশ্ন তোলায় রাজ্যপালকে বিঁধে একের পর এক তোপ দেগেছেন রাজ্যের মন্ত্রীরা। খোদ মুখ্যমন্ত্রীও রাজ্যপালের সমালোচনায় সরব হয়েছেন। এরই পাশাপাশি পার্থ চট্টোপাধ্যায়, ফিরহাদ হাকিম থেকে শুরু করে পালা করে ধনখড়ের সমালোচনা করেছেন চন্দ্রিমা ভট্টাচার্যরা।

রাজ্যে আসা ইস্তক সরকারের সঙ্গে অম্ল-মধুর সম্পর্ক রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়ের। কখনও রাজ্যের আমলাদের আলাদা ডেকে বৈঠক করে রাজ্যের বিরাগভজন হয়েছেন ধনখড়। কখনও আবার দুর্গাপুজোর কার্নিভ্যালে তাঁকে টিভিতে না দেখানোয় রাজ্যের সমালোচনায় সরব হয়েছেন রাজ্যপাল। এরই পাশাপাশি বিধানসভায় বিভিন্ন সময়ে বিল পাশ নিয়েও রাজ্য-রাজ্যপাল সংঘাতের পরিবেশ তৈরি হয়েছে। মমতা সরকারের বিরুদ্ধে তোপ দেগেছেন রাজ্যপাল জগদীপ ধনখড়।

সম্প্রতি বাজেট অধিবেশনে রাজ্যপালের ভাষণ নিয়ে ঘোর দুশ্চিন্তায় ছিল রাজ্য সরকার। বিধানসভার অলিন্দে দাঁড়িয়ে রাজ্যপাল সরকারকে নিয়ে কী বলবেন তা নিয়ে ঘোরতর ধন্দে ছিল সরকার। তবে শেষমেশ রাজ্যের দেওয়া বক্তৃতাই পাঠ করেন রাজ্যপাল।

বক্তৃতায় অসন্তোষ না দেখালেও রাজ্যে আসন্ন পুরভোটে অশান্তির আশঙ্কা করে আরও একবার রাজ্যকে কাঠগড়ায় তোলেন ধনখড়। শেষমেশ কোচবিহারের পঞ্চানন বর্মা বিশ্ববিদ্যালয়ের সমাবর্তন ঘিরেও রাজ্যের সঙ্গে দ্বন্দ্বের পরিবেশ রাজ্যপালের।

তবে দ্বন্দ্বের আবহ কাটিয়ে এবার রাজ্যপালের সঙ্গে সুসম্পর্ক গড়ে তুলতে আগ্রহী রাজ্য সরকার। সেই কারণেই রাজভবনে গিয়ে এদিন তাঁর সঙ্গে দেখা করে এলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়।