স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: সিএএ-এনআরসি বিরোধিতার সুর রেখেই নেতাজির জন্মদিনে ফের মোদী-শাহ সরকারকে বিঁধলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়। বৃহস্পতিবার সুভাষ চন্দ্র বোসের ১২৪ তম জন্মদিনে বিজেপিকে নিশানা করে মুখ্যমন্ত্রী বলেন, “হিন্দু মহাসভার বিভাজনমূলক রাজনীতির বিরোধিতা করে একটি ধর্মনিরপেক্ষ ও সংযুক্ত ভারতের পক্ষে লড়াই করেছিলেন নেতাজি”। নেতাজির জন্মদিনকে জাতীয় ছুটির দিন ঘোষণা করার আবেদনও জানান।

জামিয়া মিলিয়া, আলিগড় বিশ্ববিদ্যালয় থেকে শুরু করে কর্নাটক-উত্তরপ্রদেশে পুলিশের বিরুদ্ধে অতিরিক্ত দমনপীড়নের অভিযোগ উঠেছে। গুলিবিদ্ধ হয়ে একাধিক আন্দোলনকারীর মৃত্যু হয়েছে। এ প্রসঙ্গে মমতা বলেন, “নেতাজি রক্তের বিনিময়ে স্বাধীনতার কথা বলেছিলেন। এখন নাগরিকত্ব আইনের বিরুদ্ধে সরব হলেই মানুষের রক্ত ঝরছে।” রাষ্ট্রীয় স্বয়ং সেবককে একহাত নিয়ে মমতার মন্তব্য, নেতাজি ধর্মনিরপেক্ষের কথা বলতেন। ঝাড়গ্রামে হিন্দুমহাসভার সমালোচনা করেছিলেন তিনি। এখন হিন্দু ধর্মের যারা বদনাম করছে তারাই নেতা।আজাদির লড়াইয়ে নেতাজির আজাদ হিন্দ ফৌজে সামিল হন সব ধর্মের মানুষ।

নীতি আয়োগের কাজের পদ্ধতি নিয়ে আগেও সমালোচনা করেছেন মমতা। এদিনও, নেতাজির জন্মদিবসে, যোজনা কমিশন বিলোপের কথা তুলে প্রধানমন্ত্রীর সমালোচনা করেন মুখ্যমন্ত্রী।

এদিন নেতাজির অন্তর্ধান নিয়েও উদ্বেগ প্রকাশ করে কেন্দ্রের তীব্র নিন্দাও করেন মমতা। কেন্দ্র যে এই বিষয়টিকে গুরুত্ব দিয়ে বিবেচনা করছে না, এমন কথাও উল্লেখ করেন তিনি। মমতা সাফ বলেন, “তাঁরা কয়েকটি ফাইল অযৌক্তিকভাবে প্রকাশ করেছিল। কিন্তু বাস্তবে কী ঘটেছিল তা প্রকাশ করার কোনও পদক্ষেপ নেয়নি। এটা অত্যন্ত লজ্জার বিষয় যে ৭০ বছরেরও বেশি সময় পেরিয়ে যাওয়ার পরেও আমরা জানি না যে তার কী হয়েছিল।”