নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: এসএসকেএমে পৌঁছলেন মুখ্যমন্ত্রী মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়৷ রোগীর আত্মীয়দের সঙ্গে কথা বলেন তিনি৷ উল্লেখ্য এখনও সরকারি হাসপাতালগুলিতে বন্ধ জরুরি পরিষেবা৷ এদিন হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের সঙ্গেও কথা বলেন মুখ্যমন্ত্রী৷

পরিষেবা দ্রুত স্বাভাবিক করতে হবে বলে বার্তা দিয়েছেন মুখ্যমন্ত্রী৷ পরিস্থিতি নিয়ন্ত্রণে আনতে পুলিশ কমিশনার নিজে এসেছিলেন, এরা কারোর কথাই শুনছে না৷ যারা কাজ করবেন না, তারা হস্টেলে থাকবেন না, হস্টেল খালি করে দিন৷যারা কাজ করবেন না, তাদের সরকার কোনও সাহায্য করবে না৷

এদিন রীতিমত কড়া মনোভাব নিয়ে এসএসকেএম হাসপাতালে আসেন মুখ্যমন্ত্রী৷ কড়া বার্তা দেন জুনিয়র ডাক্তারদের৷ কোনও বিশৃঙ্খলা বরদাস্ত করা হবে না বলে জানিয়ে দিয়েছেন মমতা৷তিনি পরিষ্কার জানিয়ে দেন, চার ঘণ্টার মধ্যে জুনিয়র ডাক্তারদের কাজে যোগ দিতে হবে৷ যারা তা করবেন না, তাদের বিরুদ্ধে কঠোর ব্যবস্থা নেওয়া হবে৷ মমতা এদিন জানিয়ে দেন বৃহস্পতিবার বিকেল সাড়ে চারটের মধ্যে পরিষেবা স্বাভাবিক করতে হবে৷

এদিন চালু হয়েও ফের বন্ধ হয়ে যায় আউটডোর৷ মুখ্যমন্ত্রী বলেন “পুলিশের নজরে আসতেই ব্যবস্থা নেওয়া হয়েছে৷ কী ভেবেছে কয়েকজন? কিছু লোক নাটক করছে৷ ডাক্তারদের কোনও ধর্ম হয় না৷ বেসরকারি হাসপাতালগুলিকে অনুরোধ সহযোগিতা করুন৷ লক্ষ লক্ষ মানুষ দূর দুরান্ত থেকে আসছে৷ তাদের পরিষেবা দিতে হবে৷”

এসএসকেএমে এসে বিজেপিকে ভোট দিয়েছেন, এবার অবস্থা বুঝুন বলে কটাক্ষ করেন মমতা৷ এদিন সকালেই হাসপাতালে পৌঁছন তিনি৷ সরাসরি চলে যান জরুরি বিভাগে৷ তারপরেই যান মূল ভবনের সামনে৷ এদিন মমতা বন্দ্যোপাধ্যায়কে দেখেই বিক্ষোভ শ্লোগান দিতে থাকেন অবস্থান বিক্ষোভরত জুনিয়র চিকিৎসকরা৷ মুখ্যমন্ত্রীকে ঘিরে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন জুনিয়র ডাক্তারদের একাংশ৷

মুখ্যমন্ত্রীর অভিযোগ বহিরাগতরা এসে হাসপাতালে অশান্তি বাঁধাচ্ছে৷ পরিষেবা না দিলে চিকিৎসক হওয়া যায় না৷ দ্রুত পরিষেবা স্বাভাবিক করার হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি৷