নয়াদিল্লিঃ  ভারতে পাঠানো হচ্ছে বিজয় মালিয়াকে? সম্ভবত রাতেই দেশে ফিরছেন মালিকা? বিভিন্ন তদন্তকারী সংস্থার সূত্রে এমনটাই জানা যাচ্ছে। যদিও এখনও পর্যন্ত এই বিষয়ে সরকারিভাবে কিছু জানানো হয়নি। এমনকি কোনও সরকারি কাগজ-পত্রও আদান-প্রদান হয়নি বলে জানা যাচ্ছে।

তবে তদন্তকারী সংস্থার বিভিন্ন সূত্রকে উদ্ধৃত করে একাধিক সংবাদমাধ্যম জানাচ্ছে, বিজয় মালিয়াকে নিয়ে রাতেই হয়তো মুম্বই ছুঁতে পারে বিশেষ বিমান। কারণ সেখানেই তাঁর বিরুদ্ধে প্রথম মামলা রয়েছে। যে মামলার তদন্ত চলছে।

সংবাদমাধ্যমে প্রকাশিত খবর অনুযায়ী, মুম্বই বিমানবন্দরে প্রথমে হয়তো তাঁর শারীরিক পরীক্ষা করা হবে। এরপরেই সিবিআই এবং ইডির আধিকারিকরা বিজয় মালিয়াকে নিয়ে তাঁদের দফতরে যাবেন। সম্ভবত আজ বুধবার রাতে নাও জেরা করা হতে পারে বলেই জানাচ্ছে সংবাদ মাধ্যম।

বৃহস্পতিবার তাঁকে আদালতে তোলা হবে। জানা যাচ্ছে, মালিয়াকে নিজেদের হেফাজতে নেওয়ার জন্যে আদালতের কাছে আবেদন জানাবে সিবিআই। এনফোর্সমেন্ট ডিরেক্টরেটের তরফেও তাঁকে জেরা করা হবে। তবে অন্য একটি সূত্র জানাচ্ছে, সম্ভবত বৃহস্পতিবার ভারতের হাতে তুলে দেওয়া হচ্ছে বিজয় মালিয়াকে।

কিংফিশার এয়ারলাইন্সের মালিক বিজয় মালিয়া। দেশের ১৭ টি ব্যাংক থেকে ৯ হাজার কোটি টাকা আত্মসাৎের অভিযোগ লিকার ব্যারোনের বিরুদ্ধে। ২০১৬ সালে ভারত ছেড়ে ব্রিটেনে গা ঢাকা দেয় সে। ভারতের তরফে ব্রিটেনের আদালতে মালিয়াকে ভারতের হাতে তুলে দেওয়ার জন্য আবেদন দাখিল করেছিল। দীর্ঘ লড়াইয়ের পর ব্রিটেনের আদালত ১৪ মে ভারতে প্রত্যর্পণের আবেদনে শিলমোহর দেয় ব্রিটেনের আদালত।

উল্লেখ্য, গত ১৪ মে মালিয়ার প্রত্যর্পণের সবথেকে বড় বাধা দূর হয়ে গিয়েছিল। ওই দিন মালিয়া ভারতের বিরুদ্ধে মামলা হেরে গেছিল। এবার কেন্দ্র সরকার আগামী ২৮ দিনের মধ্যে মালিয়াকে ভারতে আনতে পারে। ২০ দিন আগেই অতিক্রান্ত হয়ে গেছে। হাতে আর মাত্র আটদিন সময় আছে।

এর আগে বিজয় মালিয়া বেশ কয়েকবার ট্যুইটারে ভারতের সমস্ত টাকা শোধ করে দেওয়ার কথা জানিয়েছিলেন। এমনকি মালিয়া এও বলেছিল যে, ভারত যা টাকা পাবে সমস্ত দিতে প্রস্তুত তিনি। শুধু তাঁকে এই মামলা থেকে রেহাই দিতে হবে আর তাঁকে গ্রেফতার করা যাবে না। যদিও ভারত সরকার তাঁর কোন আবেদন গ্রহণ করেনি।

কলকাতার 'গলি বয়'-এর বিশ্ব জয়ের গল্প