স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: বাঙালির শারোদৎসব প্রায় দোরগোড়ায়। শহর থেকে শহরতলিতে শুরু হয়ে গিয়েছে পুজোর প্রস্তুতি। জেলা থেকে শুরু করে মহানগর পুজো প্যান্ডেল গুলিতে চলছে শেষ পর্যায়ের প্রস্তুতি। আর বাঙালির এই শ্রেষ্ঠ উৎসবের উন্মাদনায় কোনও অঘটন না ঘটে যা আনন্দের পরিবেশকে নিরানন্দে পরিণত করতে না পারে সেই দিকে কড়া নজর রাখবে পুলিশ প্রশাসন।

পুজো মণ্ডপে দর্শনার্থীদের নিরাপত্তার স্বার্থে এবং কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা না ঘটে সেই উদ্দেশ্য নিয়ে শুক্রবার মালদহ জেলা পুলিশ এবং জেলা প্রশাসনের তরফে মালদহ জেলার পুজো কমিটি গুলিকে নিয়ে একটি বৈঠকের আয়োজন করেছিল প্রশাসনের পদস্থ কর্তারা।

সূত্রের খবর, এই বৈঠকে একশোরও বেশী ক্লাব এবং পুজো কমিটির কর্মকর্তারা উপস্থিত ছিলেন। শুক্রবারের বৈঠকে যেমন পুজোর দিনগুলিতে দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা নিয়ে আলোচনা হয় ঠিক তেমনই সিসিটিভির প্রসঙ্গও উঠে আসে। জেলা প্রশাসনের আধিকারিকরা জানিয়েছেন পুজো মণ্ডপে শুধু সিসি ক্যামেরা বসালেই হবে না, তা মনিটারিং করার জন্য সবসময় একজনকে নজর রাখতে হবে। দর্শনার্থীদের যাতে প্রতিমা দর্শনে কোনও অসুবিধা না হয় সেই দিকেও নজর রাখতে হবে প্রতিটি পুজো কমিটির কর্মকর্তাদের।

এছাড়াও পুজো মণ্ডপ গুলিতে দর্শনার্থীদের নিরাপত্তা রক্ষায় যে সমস্ত ভলেন্টিয়ার যুক্ত থাকবে প্রতিমা দর্শনের ক্ষেত্রে সাধারণ মানুষের যাতে কোনও অসুবিধা না হয় সেই দিকে নজর রাখার কথাও জানান এই বৈঠকে। শুধু তাই নয় রাত দশটার পর থেকে জোরে মাইক বাজানো যাবেনা বলে নির্দেশ দেন জেলা প্রশাসন এবং পুলিশের পদস্থ কর্তারা।

পাশাপাশি মণ্ডপে অগ্নিনির্বাপণের ব্যবস্থা এবং দর্শনার্থীদের জন্য পানীয় জলের ব্যবস্থা করার কথাও জানান তাঁরা। শুক্রবার মালদহ শহরের রথ বাড়ি এলাকার বানিজ্য ভবনে আয়োজিত এই বৈঠকে উপস্থিত ছিলেন ডিএসপি বিপুল মজুমদার, ইংরেজবাজার থানার আইসি শান্তনু মিত্র, ইংরেজ বাজার ব্লকের বিডিও সৌগত চৌধুরী এবং মালদহ মার্চেন্ট চেম্বার অফ কমার্সের সহ সভাপতি কমলেশ বিহানি ও সম্পাদক জয়ন্ত কুণ্ডু প্রমুখ ব্যক্তিত্ব।

বৈঠকে উপস্থিত ছিল মালদহ শহরের কয়েকটি বিগ বাজেটের পুজো কমটির উদ্যোক্তারা। বৈঠক শেষে তাঁরা জানিয়েছেন, আসন্ন দুর্গা পুজোর নিরাপত্তা নিয়ে জেলা প্রশাসন এবং পুলিশ খুব ভালো ভালো পদক্ষেপ নিয়েছে। তাঁরা আরও জানিয়েছেন প্রশাসনের সঙ্গে পুজোর দিন গুলিতে সব সময় সহযোগিতার হাত বাড়িয়ে দেবেন তাঁরা। যাতে সুন্দর এবং শান্তিপূর্ণ ভাবে পুজো কাটাতে পারে মানুষ।

মালদহ মার্চেন্ট অফ কমার্সের সভাপতি জয়ন্ত কুণ্ডু জানিয়েছেন, শহরের প্রাণকেন্দ্র ফোয়ারা মোড় এলাকায় এই সংগঠনের পক্ষ থেকে একটি শিবিরের আয়োজন করা হবে। তাতে দর্শনার্থীদের জন্য মেডিকেলের পাশাপাশি পানীয় জলের ব্যবস্থাও করা হবে। এই শিবিরের একটাই উদ্দেশ্য দুরদুরান্ত থেকে প্রতিমা দর্শন করতে আসা মানুষদের সুস্থ ও সুন্দর পরিষেবা পৌঁছে দেওয়া।

ইংরেজবাজার থানার আইসি জানিয়েছেন, শুক্রবার শহরের বিভিন্ন পুজো কমিটি গুলিকে নিয়ে এই বৈঠকের আয়োজন করা হয়েছিল। উপস্থিত সকল পূজা কমিটির সদস্যদের সামনে পুলিশ ও প্রশাসনের যে সমস্ত নিয়মাবলী রয়েছে তা তুলে ধরা হয়েছে। পাশাপাশি বিভিন্ন পুজো কমিটির কর্তাদের কাছে তাদের পুজো নিয়ে কি ধরনের সমস্যা রয়েছে তাও শোনা হয়েছে। সব সমস্যা সমাধানের আশ্বাস দেওয়া হয়েছে।