স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: চিকিৎসার গাফিলতিতে সদ্যজাত শিশুর মৃত্যুর অভিযোগকে ঘিরে উত্তেজনা ছড়াল মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। মঙ্গলবার সকালে ঘটনাটি ঘটেছে। ঘটনাস্থলে পুলিশ গিয়ে বিক্ষোভকারীদের সঙ্গে কথা বলে পরিস্থিতি সামাল দেয়। এদিনই সকালে হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ দায়ের করেন মৃত শিশুর পরিবারের লোকেরা। অভিযোগের ভিত্তিতে কমিটি গড়ে তদন্তের আশ্বাস দেন কর্তৃপক্ষ।

ইংরেজবাজার থানার কোতুয়ালি গ্রাম পঞ্চায়েতের সাহাপাড়া গ্রামের বাসিন্দা অপূর্ব সাহা তাঁর স্ত্রী ঝর্ণা দেবীকে প্রসব যন্ত্রণা নিয়ে গত, ২৪ জুন সকালে ভরতি করেন মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে। ওই দিনই অস্ত্রোপচারের মাধ্যমে ঝর্ণা দেবী পুত্র সন্তানের জন্ম দেন।

অভিযোগ, জন্মের পর থেকে সদ্যজাত শিশুটি ঠিক মতো খেতে পারছিল না। চিকিৎসকদের জানানো হলেও কোন গুরুত্ব দেননি বলে অভিযোগ। গত সোমবার বিকেলে চিকিৎসকেরা জানান শিশুর শারীরিক অবস্থার অবনিত হয়েছে। তারপরই সদ্যজাত শিশুটিকে প্রসূতি বিভাগ থেকে স্থানান্তরিত করা হয় নিউনেটাল কেয়ার ইউনিটে। সেখানেও শিশুটির ঠিক মতো চিকিৎসা করা হয় নি বলে অভিযোগ।

মঙ্গলবার সকাল ছটা নাগাদ শিশুটি মারা যায়। তারপরই ক্ষোভে ফেটে পড়েন আত্মীয় স্বজনেরা। গাফিলতির অভিযোগ তুলে ওয়ার্ডের সামনে বিক্ষোভ দেখানো হয়। নিরাপত্তা রক্ষীরা সরিয়ে দিলে হাসপাতালের বাইরে বেড়িয়েও ক্ষোভ প্রকাশ করেন তাঁরা। ঘটনায় হাসপাতাল জুড়ে উত্তেজনা ছড়িয়ে পড়লে পুলিশ গিয়ে পরিস্থিতি স্বাভাবিক করে।

হাসপাতাল সূত্রে জানা গিয়েছে, শিশুটির ওজন স্বাভাবিকের তুলনায় কম ছিল। এছাড়া সংক্রামন ও জন্ডিসে আক্রান্ত ছিল শিশুটি। তবে গাফিলতি রয়েছে কিনা তা খতিয়ে দেখা হবে বলে জানিয়েছেন ডেপুটি সুপার জ্যোতিষ চন্দ্র দাস। তিনি বলেন, কমিটি গঠন করে তদন্ত করা হবে। গাফিলতি প্রমাণিত হল প্রয়োজনীয় পদক্ষেপ নেওয়া হবে।