মালদহ: শিশু চুরির ঘটনাকে কেন্দ্র করে চাঞ্চল্য ছড়াল মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে৷ খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালের অধ্যক্ষ অমিত দা। ঘটনায় লিখিত অভিযোগ দায়ের করা হয়েছে ইংরেজবাজার থানায়৷ তদন্ত শুরু করেছে পুলিশ।

হারিয়ে যাওয়া শিশুর ঠাকুমা পুতুল মণ্ডল জানান, গত বুধবার তাঁর বউমা সঞ্জু মণ্ডলের রান্না করতে গিয়ে গায়ে আগুন ধরে যায়। পরিবারের সদস্যরা তাকে অগ্নিদগ্ধ অবস্থায় উদ্ধার করে স্থানীয় স্বাস্থ্য কেন্দ্রে নিয়ে যায়। কিন্তু তাঁর অবস্থা খারাপ থাকায় ওই দিনই রাত্রিবেলা মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে স্থানান্তরিত করতে হয়। তিনি মালদহ মেডিক্যাল কলেজের বার্ন ওয়ার্ডে চিকিৎসাধীন ছিলেন।

শনিবার সঞ্জু মণ্ডলের এক মাসের ছেলেকে নিয়ে দেখা করতে যান পুতুল দেবী। সেখানে পাশের বেডে এক মহিলার সঙ্গে পরিচয় হয়। এরপরে পুতুল মণ্ডল শিশুটিকে ওই মহিলার কাছে রেখে শৌচালয় যায়। ফিরে এসে দেখে ওই মহিলা ও বাচ্চাটি নেই। এরপর বাচ্চাটির খোঁজ শুরু করে পরিবারের লোকজন। সারা হাসপাতাল খুঁজেও শিশুটির কোনও হদিস তাঁরা পায়নি। এরপর হাসপাতাল কর্তৃপক্ষকে সমস্ত ঘটনা জানায়। খবর পেয়ে তড়িঘড়ি ঘটনাস্থলে ছুটে আসেন হাসপাতাল সুপার অমিত দাঁ।

তিনি বলেন, ঘটনার খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে ছুটে আসি। কর্তব্যরত নার্সদের কাছ থেকে জানতে পারি তারা বারবার ওই পরিবারকে জানায় শিশু নিয়ে এই ঘরে ঢোকা নিষেধ রয়েছে। তা সত্ত্বেও তিনি সেখানে যান। এটা উচিত নয়। আমরা ইতিমধ্যে ইংরেজবাজার থানার পুলিশকে জানিয়েছি। পাশাপাশি হাসপাতালে সিসিটিভি ফুটেজ খতিয়ে দেখা হচ্ছে।

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।