স্টাফ রিপোর্টার, মালদহ: শিশু বদলের অভিযোগ উঠল মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে। পুত্র সন্তানের পরিবর্তে কন্যা সন্তান দেওয়ার অভিযোগ উঠেছে। এই অভিযোগে শিশু নিতে অস্বীকার করে পরিবার। ঘটনার লিখিত অভিযোগ দাযের হয়েছে মেডিক্যাল কলেজের সহ অধ্যক্ষের কাছে। ঘটনার তদন্তের নির্দেশ দিয়েছে কর্তৃপক্ষ।

জানা গিয়েছে, গাজোলের লেলিন পাড়ার প্রসূতি সুনিতা কর্মকার সোমবার সন্ধ্যায় মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে ভর্তি হন। সন্ধ্যায় মালদহ মেডিক্যাল কলেজে তিনি শিশুর জন্ম দেন। পরিবারে দাবি, ওই প্রসবেরসময় তাঁর কাছেই ছিলেন সুস্মিতার মা পূর্নিমা দেবী। কিন্তু পুত্র সন্তান হলেও তাঁদেরকে জোর করে কন্যা সন্তান হয়েছে বলে লেখানোর চেষ্ঠা হয়। এনিয়ে উপস্থিত নার্সিং স্টাফ ও স্বাস্থ্য কর্মীদের সাথে বচসাও বাড়ে ওই প্রসূতির মায়ের। যার জেরে গভীর রাত পর্যন্ত পরিবার সঙ্গে মেডিক্যাল কলেজের চলে টানাপোড়েন।

সকালে বাড়ির লোকজন এলে তাঁদের বিষয়টি জানানো হয়। এরপরেই কর্তৃপক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ জানানোর সিদ্ধান্ত নেয় পরিবার। মঙ্গলবার দুপুরে মেডিক্যাল কলেজের সহ অধ্যক্ষের কাছে লিখিত অভিযোগ জানান ওই মহিলার স্বামী। অভিযোগ পাওয়ার পরেই নড়েচড়ে বসে মেডিক্যাল কলেজ কর্তৃপক্ষ। তড়িঘড়ি ডেপুটি সুপারের নেতৃত্বে পাঁচ সদস্যের একটি তদন্ত কমিটি গঠন করা হয়েছে। দুই দিনের মধ্যে রিপোর্ট জমা দিতে বলা হয়েছে কমিটিকে।

যদিও হাসপাতাল কর্তৃপক্ষের ধারনা পুরো ব্যাপারটি নিছক ভুল বোঝাবুঝি। শিশু বদলেরকোন সম্ভবনা নেই। যদিও ওই প্রসূতির পরিবারের অভিযোগ নিরপেক্ষ তদন্ত হলে বড়সড় অনিয়ম প্রকাশ্যে আসতে পারে।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ