স্টাফ রিপোর্টার, মালদহঃ  তৃতীয় দফা ভোটের আগে ফের উত্তপ্ত বাংলা। বেলা বাড়তেই একাধিক জায়গা থেকে আসতে শুরু করেছে অশান্তির খবর। উত্তর মালদহের চাচোল বিধানসভা কেন্দ্রের ২১৬ নম্বর প্রাথমিক বিদ্যালয় বুথের বাইরে ব্যাপক বোমাবাজির খবর আসতে শুরু করেছে। এমনকি ঘটনাকে কেন্দ্র করে গুলি চলারও অভিযোগ। বহিরাগত দুষ্কৃতীদের দিক থেকে এই ঘটনা ঘটিয়েছে বলে অভিযোগ উঠেছে। শাসক দল ও বিজেপি একে অপরের বিরুদ্ধে অভিযোগ তুলছেন। ঘটনার খবর পেয়েই এলাকায় পৌঁছায় বিশাল পুলিশ বাহিনী৷ মোতায়েন করা রয়েছে কেন্দ্র বাহিনী৷ পরিস্থিতি কিছুটা স্বাভাবিক হলেও এলাকা থেকে একটি তাজা বোমা উদ্ধার করেছে পুলিশ।

তবে এই ঘটনার খবরে তীব্র আতঙ্ক তৈরি হয়েছে গোটা এলাকায়। ঘটনার পর গোটা এলাকা থমথমে পরিস্থিতি। আতঙ্কিত ভোটকর্মী থেকে ভোটাররাও। আতঙ্কিত ভোট দিতে আসছেন না কোনও ভোটাররাই। যদিও কমিশনের আধিকারিকরা ঘটনাস্থলে গিয়েছে ভোটারদের বোঝানোর চেষ্টা করছে বলে জানা যাচ্ছে। ভোটারদের আস্থা বাড়ানোর জন্যে বাহিনীও রুট মার্চ করছে।

অন্যদিকে, উত্তর মালদহের চাচোল বিধানসভা কেন্দ্রের কলিগ্রাম উচ্চ বালিকা বিদ্যালয় ১৭৩ নম্বর বুথে ভোটারদেরকে প্রভাবিত করার অভিযোগ। অভিযোগের তির শাসকদলের বিরুদ্ধে। আর সেই ছবি করতে যাচ্ছিলেন এক বিজেপি কর্মী। তাঁর নাম সাগর রায়। তাঁকে ছবি তুলতে বাধা দেওয়াতে ব্যাপক মারধর করা হয় বলে অভিযোগ। শুধু তাই নয়, ধারালো অস্ত্রের কোপে তাঁর মাথা ফাটিয়ে দেওয়ার অভিযোগ। বর্তমানে চাচল মহাকুমা হাসপাতালে চিকিৎসাধীন।

পাশাপাশি উত্তর মালদহ লোকসভা কেন্দ্রের অন্তর্গত রতুয়া বিধানসভা কেন্দ্রের অধীন সামসীর মতিগঞ্জে ১৫৫ ও ১৫৬ নম্বর বুথে বিজেপি-তৃণমূল ব্যাপক সংঘর্ষ। বিজেপি কার্যালয় ভাংচুরের অভিযোগ তৃণমূলের বিরুদ্ধে। খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে রতুয়া থানা থেকে পুলিশ ও কেন্দ্রীয় বাহিনী। এলাকায় রয়েছে উত্তেজনা।