স্টাফ রিপোর্টার, কলকাতা: মালদহের প্লাস্টিক কারখানায় তীব্র বিস্ফোরণ। ঘটনায় চার জনের মৃত্যু হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। গুরুতর জখম হয়েছেন আরও অনেকে। বিস্ফোরণের খবর পেয়েই মালদহ যাচ্ছেন রাজ্যের পুর ও নগরোন্নয়ন মন্ত্রী ফিরহাদ হাকিম।

রাজ্যের মুখ্যসচিব জানিয়েছেন, মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে ঘটনাস্থলে হেলিকপ্টারে করে যাচ্ছেন ফিরহাদ হাকিম। নিহতদের পরিবারকে ২ লক্ষ টাকা করে ক্ষতিপূরণ দেওয়া হবে বলেও জানানো হয়েছে। এছাড়া আহতদের ৫০ হাজার টাকা দেওয়া হবে। মুখ্যসচিব বলেন, ”মুখ্যমন্ত্রীর নির্দেশে আমরা সবাই বৈঠক করেছি। ডিএম ও এসপির সঙ্গে আমরা প্রতিনিয়ত যোগাযোগ রাখছি।”

বৃহস্পতিবার দুপুরে মালদহ জেলার কালিয়াচক থানার সুজাপুরে একটি প্লাস্টিক কারখানায় জোরদার বিস্ফোরণের শব্দে চমকে ওঠেন স্থানীয় বাসিন্দারা।প্লাস্টিক কারখানার ক্রাশার মেশিন ব্লাস্ট করেছিল বলে প্রাথমিকভাবে অনুমান করা হচ্ছে। এই ক্রাশার মেশিনের মাধ্যমে প্লাস্টিকের দানা বের করা হয়। আহত শ্রমিকদের মালদহ মেডিক্যাল কলেজ হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হয়েছিল। তবে ঘটনাস্থলেই চার শ্রমিক প্রাণ হারিয়েছেন। বিস্ফোরণের তীব্রতা এতটাই ছিল যে শ্রমিকদের দেহ টুকরো টুকরো হয়ে গিয়েছে।

খবর পেয়ে ঘটনাস্থলে পৌঁছয় পুলিশ। বিস্ফোরণের কারণ অনুসন্ধানে তদন্তে নেমেছে ফরেন্সিক দল।

বিস্ফোরণে আহতদের নাম- আবু শাহেদ (৪৫), মুসা শেখ (৫০), প্রমিলা মণ্ডল (৪৫), জুলি বেওয়া (৩৫), জুলখা বিবি (২৫), রেণুকা মণ্ডল (৫০)।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনাকালে বিনোদন দুনিয়ায় কী পরিবর্তন? জানাচ্ছেন, চলচ্চিত্র সমালোচক রত্নোত্তমা সেনগুপ্ত I