Nadia district police ask report from Bjp for Nabaswip Rathyatra
ফাইল ছবি।

মালদহ:  করোনা আক্রান্ত আরও এক বিজেপি বিধায়ক। মারণ করোনার সংক্রমণের শিকার বৈষ্ণবনগরের বিজেপি বিধায়ক স্বাধীন সরকার। বিজেপি বিধায়কের করোনা সংক্রমণের খবর ছড়িয়ে পড়তেই তীব্র আতঙ্ক ছড়িয়েছে। এর মধ্যে কারোর সঙ্গে তিনি মিশেছিলেন কিনা তা জানার চেষ্টা করা হচ্ছে। তাঁর সংস্পর্শে আসা সবাইকে করোনা টেস্ট করার সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে।

জানা যাচ্ছে, বিজেপি বিধায়ক আপাতত হোম কোয়ারেন্টাইনে রয়েছে। জানা গিয়েছে, বিজেপি বিধায়কের স্বাস্থ্যের প্রতি মুহূর্তের খোঁজখবর নিচ্ছেন দলীয় সাংসদ খগেন মুর্মু। জানা গিয়েছে, গত কয়েকদিন ধরেই জ্বর ও গলা ব্যাথা-সহ করোনার একাধিক উপসর্গ ছিল তাঁর। উপসর্গ দেখে সন্দেহ তৈরি হয় খোদ বিধায়কের মনে। সঙ্গে সঙ্গে চিকিৎসকের পরামর্শও নেন তিনি।

এরপরই শনিবার মালদহ মেডিক্যাল কলেজ ও হাসপাতালে নমুনা পরীক্ষার জন্য যান স্বাধীনবাবু। রবিবার হাসপাতালের তরফ থেকে বিধায়ককে জানানো হয়েছে যে, তাঁর রিপোর্ট পজিটিভ। জানা যাচ্ছে, বিজেপি বিধায়ক আপাতত হোম আইসোলেশনে রয়েছেন।

আগামী ১৪ দিন তাঁকে বাড়ীতেই থাকার কথা বলা হয়েছে। প্রতি মুহূর্তে চিকিৎসকদের পরামর্শ নিচ্ছেন তিনি। নজরও রাখা হচ্ছে তাঁর শারীরিক অবস্থার মতো। খুব প্রয়োজন হলে তাঁকে হাসপাতালে ভর্তি করা হবে বলে জানা গিয়েছে। তবে এখনও তেমন পরিস্থিতিতে আসেনি বলেই খবর।

প্রসঙ্গত, মালদহে ক্রমশ করোনা আক্রান্তের সংখ্যা বেড়ে চলেছে। রবিবার নতুন করে ৪৫ জনের শরীরে মিলেছে মারণ করোনার সংক্রমণ। আক্রান্তদের মধ্যে ১৮ জনই মালদহ শহরের বাসিন্দা। এছাড়াও চাঁচোল, গাজোল ব্লকগুলিতেও আক্রান্ত রয়েছেন বেশ কয়েকজন। তথ্য বলছে, মালদায় এক হাজার পেরিয়ে গিয়েছে আক্রান্তের সংখ্যা। অধিকাংশ আক্রান্তই হোম আইসোলেশনে রয়েছেন বলে জানা যাচ্ছে।

অন্যদিকে, শনিবারের হিসেব অনুযায়ী, গত ২৪ ঘণ্টায় আক্রান্তের সংখ্যা প্রায় ১৪০০। শুক্রবার থেকে শনিবার সকাল ৯ টা পর্যন্ত মৃত্যু হয়েছে ২৬ জনের৷ ফলে এই পর্যন্ত মোট মৃতের সংখ্যা বেড়ে দাঁড়াল ৯০৬ জনে।তবে অ্যাক্টিভ আক্রান্তের সংখ্যা ৯,৫৮৮ জন৷

শনিবার রাজ্য স্বাস্থ্য ভবনের বুলেটিনের তথ্য অনুযায়ী, একদিনে আক্রান্তের সংখ্যা ১,৩৪৪ জন।ফলে এই পর্যন্ত মোট আক্রান্তের সংখ্যা দাঁড়াল ২৮,৪৫৩ জনে ৷

আক্রান্ত ও মৃতের পাশাপাশি অনেকেই সুস্থ হয়ে উঠেছেন। একদিনে ৬১১ জন সুস্থ হয়ে হাসপাতাল থেকে বাড়ি ফিরেছেন। ফলে এই পর্যন্ত মোট সুস্থ হয়ে উঠেছেন ১৭,৯৫৯ জন। যা শতাংশের হিসেবে ৬৩.১১ শতাংশ৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.