গুরগাঁও: ফসল ধ্বংসকারী মরুভূমির পঙ্গপালের হাত থেকে বাঁচতে এবার সতর্কতা জারি হল গুরগাঁওতে। প্রশাসনের পক্ষ থেকে জানানো হয়েছে, সাধারণ মানুষ যাতে পঙ্গপাল হানার হাত থেকে বাঁচতে বাড়ির সব দরজা জানলা বন্ধ রাখেন ও বাসন বা যে কোনও পাত্রে আঘাত করে জোরে জোরে শব্দ করেন। পার্শ্ববর্তী হরিয়ানাতে পঙ্গপালের দলবদ্ধ ঝাঁক দেখার পরেই এই সতর্কতা জারি করা হয়েছে গুরগাঁও প্রশাসনের পক্ষ থেকে।

প্রশাসনের তরফে জানানো হয়েছে, পঙ্গপালের একটি ঝাঁক মহেন্দ্রগড় জেলায় পৌঁছেছে এবং রেওয়ারি সীমান্তেো সেগুলি পৌঁছে যাবে বলে মনে করা হচ্ছে। এমন অবস্থায় সাধারণ মানুষকে টিনের বাক্স, বাসন পিটিয়ে শব্দ তৈরি করতে বলেছে, যাতে পঙ্গপালগুলি চলে যায়।

পাশাপাশি কৃষকদেরও তাঁদের পাম্প রেডি রাখতে বলা হয়েছে। যাতে তা দিয়ে পঙ্গপালের ওপর স্প্রে করা যায়। কৃষি বিভাগের কর্মচারীদের গ্রামে পঙ্গপালের বিষয়ে সকলকে সতর্ক করতে বলেছে।

উল্লেখ্য গুজরাত, মধ্যপ্রদেশ ও হরিয়ানায় মরুভূমির পঙ্গপালের বিশাল ঝাঁক আঘাত হেনেছে। এরা ইতিমধ্যেই বহু ফসল ধ্বংস করেছে। এই ঝাঁককে আটকাতে না পারলে সমূহ বিপদ।

কেন্দ্র সরকার ইতিমধ্যে এই পঙ্গপালের ঝাঁক আটকাতে ১১ টি কন্ট্রোল রুম চালু করেছে।

আফ্রিকার পর ইরান, পাকিস্তান হয়ে ভারতে উড়ে আসে পঙ্গপালগুলি। এরা সব গাছপালা ও শস্যের জন্য মারাত্মক ক্ষতিকর। এদের দাপটে ভারতে ফসলের ঘাটতি দেখা যেতে পারে বলে মনে করছেন বিশেষজ্ঞরা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ