ঢাকা: এবার থেকে সপ্তাহে আরও একদিন বেশি চলবে মৈত্রী ও বন্ধন এক্সপ্রেস। রেল সূত্রে খবর, আগামী ১১ ফেব্রুয়ারি থেকে বাড়তি মৈত্রী এক্সপ্রেস চালু হবে। আর অতিরিক্ত বন্ধন এক্সপ্রেস ট্রেন চলবে ১৬ ফেব্রুয়ারি থেকে। তবে যাত্রীদের সুবিধার কথা মাথায় রেখে টিকিটের মূল্য এবং সময় অপরিবর্তিত রাখা হয়েছে।

আগে সপ্তাহে চারদিন চলত ঢাকা-কলকাতা যাত্রীবাহী ট্রেন ‘মৈত্রী এক্সপ্রেস’। আগে বুধ, শুক্র, শনি ও রবিবার ঢাকা থেকে ছাড়ত এই ট্রেনটি। এবার সেই তলিকায় যোগ হল মঙ্গলবার। ওইদিনও বাংলাদেশের রাজধানী ঢাকা থেকে যাত্রী নিয়ে সফর শুরু করবে ট্রেনটি। আর কলকাতা থেকে যাত্রী নিয়ে ফিরবে বুধবার। কলকাতা থেকে সোম, মঙ্গল, বুধ, শুক্র ও শনিবার মৈত্রী এক্সপ্রেস ছাড়বে। অন্যদিকে বন্ধন এক্সপ্রেস খুলনা থেকে ছাড়ত আগে শুধু বৃহস্পতিবার, এখন রবিবারও চলবে ট্রেনটি।

কলকাতার পর শিলিগুড়িতেও বাংলাদেশ থেকে এবছরই ট্রেন চলাচল শুরু হবে বলে সংসদে জানিয়েছেন রেলমন্ত্রী নুরুল ইসলাম সুজন। মঙ্গলবার তিনি সংসদে বলেন, “ভারতের সঙ্গে রেলপথ যোগাযোগ বাড়ানোর উদ্যোগ নেওয়া হয়েছে। আগামী জুনে ঢাকা থেকে শিলিগুড়ি পর্যন্ত রেল পরিষেবা শুরু করা হবে।”

শিলিগুড়ি পর্যন্ত ট্রেন গেলে বাংলাদেশ থেকে যেসব পর্যটক দার্জিলিং কিংবা সিকিম যান, তাদের সুবিধা হবে। এখন বাংলাদেশ থেকে সরাসরি শুধু সড়ক পথেই শিলিগুড়ি যাওয়া যায়।

প্রসঙ্গত, ব্রিটিশ আমলেই চালু হয় খুলনা-বেনাপোল-কলকাতা ট্রেন চলাচল৷ ওই সময় ট্রেনগুলিতে প্রতিদিনই সফর করতেন অনেক যাত্রী৷ চাঁদপুর, বরিশাল, ফরিদপুরের যাত্রীরা একই টিকিটে স্টিমারে চেপে খুলনায় এসে ট্রেনে করে কলকাতা যেতেন। ১৯৬৫ সালে ভারত-পাকিস্তান যুদ্ধের পর খুলনা-কলকাতা ট্রেন চলাচল বন্ধ হয়ে যায়। তারপর ভারত ও বাংলাদেশের মধ্যে আলোচনার পর ২০১৭ সালের ১৭ নভেম্বর যাত্রা শুরু করে বন্ধন এক্সপ্রেস। ২০০৮ সালের ১৪ এপ্রিল বাংলা নববর্ষের প্রথম দিনে এই মৈত্রী ট্রেনের যাত্রা শুরু হয়। এই যাত্রার সূচনা করেছিলেন তৎকালীন অর্থমন্ত্রী প্রণব মুখোপাধ্যায়৷