বিশাখাপত্তনম: শতরানেই টেস্ট ক্রিকেটে দুরন্ত প্রত্যাবর্তন করলেন রোহিত শর্মা। লোকেশ রাহুলের অনুপস্থিতিতে দক্ষিণ আফ্রিকার বিরুদ্ধে সিরিজ থেকেই টেস্ট ওপেনার হিসেবে রোহিতকে নয়া চ্যালেঞ্জ দিয়েছে টিম ম্যানেজমেন্ট। কিন্তু বোর্ড প্রেসিডেন্ট একাদশের হয়ে প্রস্তুতি ম্যাচে ওপেন করতে নেমে ডাহা ফেল করেছিলেন রোহিত। ফিরেছিলেন শূন্য রানে।

কিন্তু পাঁচদিনের ক্রিকেটে ওপেনার হিসেবে চ্যালেঞ্জটা যে তিনি ভালোভাবেই গ্রহণ করেছেন, সেটা বুঝিয়ে দিলেন প্রথম টেস্টের প্রথম দিনেই। প্রথম টেস্টের প্রথম সেশনে সতীর্থ ময়াঙ্ক আগরওয়ালের সঙ্গে বড় রানের ইনিংস খেলার বার্তা দিয়েছিলেন সীমিত ওভারে কোহলির ডেপুটি। আর প্রথম দিনের দ্বিতীয় সেশনে ওপেনার হিসেবে টেস্ট ক্রিকেটে প্রথম শতরান করে টিম ম্যানেজমেন্টকে আশ্বস্ত করলেন হিটম্যান। চা-পানের বিরতির আগে ৫৪তম ওভারে সেনুরান মুথুস্যামির একটি শর্ট বল কভারে ঠেলে টেস্ট ক্রিকেটে নিজের তৃতীয় শতরানটি পূর্ণ করেন ‘হিটম্যান’ রোহিত।

একইসঙ্গে জানান দিয়ে গেলেন সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাট হোক কিংবা টেস্ট ক্রিকেট, রোহিত আছেন রোহিতেই। পাশাপাশি চতুর্থ ভারতীয় ব্যাটসম্যান হিসেবে পাঁচদিনের ক্রিকেটে ওপেনার হিসেবে প্রথম ইনিংসেই শতরানের নজির গড়লেন হিটম্যান। ওপেনার হিসেবে টেস্ট অভিষেকে প্রথম দুটি সেশনে রোহিতকে যোগ্য সঙ্গত করে গেলেন ময়াঙ্ক আগরওয়াল। দুই ওপেনারের দাপুটে ব্যাটিংয়ে চা-পানের বিরতিতে ভালো জায়গায় টিম ইন্ডিয়া। দ্বিতীয় সেশন শেষে ভারতের রান বিনা উইকেটে ২০২। রোহিত অপরাজিত ১১৫ রানে, ময়াঙ্ক ক্রিজে রয়েছেন ৮৪ রানে।

ব্যাটিং সহায়ক উইকেটে বিশাখাপত্তনমে প্রথম টেস্টে এদিন টস জিতে প্রথমে ব্যাটিংয়ের সিদ্ধান্ত গ্রহণ করেন ভারত অধিনায়ক বিরাট কোহলি। টিম ম্যানেজমেন্টকে ভরসা জুগিয়ে ওপেনার হিসেবে অভিষেক টেস্টের শুরুটা দুর্দান্ত করেন হিটম্যান। আগ্রাসী মেজাজে ধরা দিয়ে প্রথম সেশনেই অর্ধশতরান পূর্ণ করে ফেলেন রোহিত। ৫টি চার ও ২টি ছয়ের সাহায্যে লাঞ্চে ৫২ রানে অপরাজিত থাকেন তিনি। অন্যদিকে ময়াঙ্কের অপরাজিত ৩৯ রানে ভর করে প্রথম সেশনে বিনা উইকেটে ৯১ রান তোলে টিম ইন্ডিয়া।

যেখানে শেষ করেছিলেন লাঞ্চের পর সেখান থেকেই শুরু করেন রোহিত। এতটুকু ভয়ঙ্কর হয়ে ওঠার সুযোগ না দিয়ে রাবাদা-মহারাজদের উপর ব্যাট হাতে ছড়ি ঘোরাতে থাকেন হিটম্যান। রোহিতের একের পর এক দর্শনীয় শট আছড়ে পড়তে থেকে স্টেডিয়ামের বিভিন্ন দিকে। ধ্রুপদী ব্যাটিংয়েই ওপেনার হিসেবে প্রথম টেস্ট শতরানটি তুলে নেন সংক্ষিপ্ত ফর্ম্যাটে কোহলির ডেপুটি। ১২টি চার ও ৫টি ছয়ের সাহায্যে চা-পানের বিরতিতে ১১৫ রানে অপরাজিত রয়েছেন তিনি।

শতরানের দিকে এগিয়ে চলা আরেক ওপেনার ময়াঙ্ক অপরাজিত ৮৪ রানে। মন্দ আলোর জন্য নির্ধারিত সময়ের খানিক আগেই দ্বিতীয় সেশনের সমাপ্তি ঘোষণা করেন আম্পায়াররা।