স্টাফ রিপোর্টার, বাঁকুড়া ও জলপাইগুড়ি: জাতীর জনক মহাত্মা গান্ধীর প্রয়াণ দিবসে সর্বধর্ম প্রার্থনা সভার আয়োজন করল বাঁকুড়া জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি দফতর। বুধবার রবীন্দ্র স্মৃতি ধন্য হিলহাউসে এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত ছিলেন জেলাশাসক ডাঃ উমাশঙ্কর এস, বাঁকুড়া জেলা পরিষদের সভাধিপতি মৃত্যুঞ্জয় মুর্ম্মু, জেলা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক অরুণাভ মিত্র প্রমুখ।

জেলাশাসক ডাঃ উমাশঙ্কর এস গান্ধীজীর প্রতিকৃতিতে মাল্যদানের মধ্য দিয়ে অনুষ্ঠানের সূচনা করেন। পরে উপস্থিত সব ধর্মের মানুষ বিশেষ প্রার্থনা সভায় যোগ দেন।জেলাশাসক ডাঃ উমাশঙ্কর এস বলেন, ইতিমধ্যে আমরা আমাদের জেলায় মিশন নির্মল বাংলা প্রকল্পে পাঁচ লক্ষ শৌচাগার তৈরি করে ফেলেছি। কিন্তু এখানেই থেমে থাকলে চলবে না। মহাত্মা গান্ধীর আদর্শে অনুপ্রাণিত হয়ে তাঁর প্রয়াণ দিবসে জেলাকে স্বচ্ছ ও নির্মল করার ডাক দেন তিনি।

খাতড়া মহকুমা তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের উদ্যোগেও দিনটি যথাযোগ্য মর্যাদায় পালিত হয়। এদিন মহকুমা তথ্য ও সংস্কৃতি দফতরের সভাকক্ষে সর্বধর্ম সভার আয়োজন করা হয়। উপস্থিত ছিলেন মহকুমা তথ্য ও সংস্কৃতি আধিকারিক রামশঙ্কর মণ্ডল সহ এলাকার বিশিষ্ট জনেরা।

অন্যদিকে জলপাইগুড়িতেও এই দিনটি গান্ধীজীর ভারত ভাবনা, সম্প্রীতিবোধ ও আদর্শের দৃঢ়তাকে সামনে রেখে ছাত্র যুব সংগঠন ওয়াইবিভিও-এর উদ্যোগে ও জলপাইগুড়ি ইয়ুথ ক্লাব-এর আয়োজনে গান্ধী মূর্তির পাদদেশে একটি অনুষ্ঠানের আয়োজন করা হয়৷

অনুষ্ঠানে ফুল ও মালা দিয়ে গান্ধীজীর প্রতি শ্রদ্ধাজ্ঞাপন করেন সংগঠন সভাপতি শ্রী সুপ্রিয় চন্দ, জলপাইগুড়ির মাননীয় বিধায়কের প্রতিনিধি শ্রী তপন চক্রবর্তী সহ টুবাই রায়, আলোড়ন বনিক, দেবাশিস কুণ্ডু, গোপাল কর্মকার, চিরঞ্জিৎ রায় প্রভৃতি সংগঠনের অন্যান্য সদস্যবৃন্দ।

অনুষ্ঠানে সম্প্রীতির শপথ গ্রহণ কর্মসূচীর পাশাপাশি গান্ধীজীর জীবন ও বাণী নিয়েও আলোচনা হয়। ছাত্র যুব সংগঠন ইয়ুথ বেঙ্গল ভলেনটিয়ারস অর্গানাইজেশন-এর পক্ষে সভাপতি শ্রী সুপ্রিয় চন্দ জানান, মহাত্মা গান্ধীর ভারত ভাবনার মূল সুরই ছিল অহিংসা, পরমতসহিষ্ণুতা ও সম্প্রীতিবোধ। সবাইকে সঙ্গে নিয়ে চলাই ছিল তাঁর নেতৃত্বের আদর্শ। আজকের সময়ে দাঁড়িয়েও তাই বিশেষভাবে মহাত্মা ভারতের সমাজ ও ব্যক্তিজীবনে বিশেষভাবে প্রাসঙ্গিক।