মুম্বই: দেশজুড়ে করোনা ভাইরাসের দ্বিতীয় ঢেউ উদ্বেগ তৈরি করেছে সকলের মধ্যে। করোনা সংক্রমণ রুখতে একাধিক জায়গায় ফের লকডাউন এবং কার্ফু ঘোষণা করা হয়েছে। পড়ুয়াদের কথা মাথায় রেখে একাধিক রাজ্য সমস্ত স্কুলের ২০২১-২২ সালের অফলাইন পঠন-পাঠনও বন্ধ রাখবার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। তবে মহারষ্ট্রে নিচু ক্লাসের পরীক্ষা বন্ধ রাখলেও বোর্ড পরীক্ষার পড়ুয়াদের জন্য কী সিদ্ধান্ত নিতে চলেছে সরকার সেই দিকে তাকিয়ে ছিল রাজ্যের সকলে। আর সেই ধোঁয়াশা কাটিয়ে সোমবার রাজ্যের শিক্ষামন্ত্রী বর্ষা গায়কোয়াড জানিয়ে দিয়েছেন, ক্লাস ১০ এবং ১২-এর পড়ুয়াদের বোর্ড পরীক্ষা মে মাসের শেষের দিকে নেওয়া হবে। এর পাশাপাশি এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষাও করোনার কারণে স্থগিতের ঘোষণা করেছেন শিক্ষামন্ত্রী।

সোমবার মহারাষ্ট্রের শিক্ষামন্ত্রী বর্ষা গায়কোয়াড এসএসসি এবং এইচএসসি পরীক্ষাও করোনার সময়ে স্থগিতের বিষয় জানিয়ে একটি টুইট করেন। তিনি টুইটে উল্লেখ করেছেন, বর্তমান কোভিড-১৯ এর কথা মাথায় রেখে রাজ্যের বোর্ড পরীক্ষাগুলি সম্প্রতি বন্ধ রাখা হয়েছে। তবে বিভিন্ন পেশাদার কোর্স এবং দ্বাদশ শ্রেণির বোর্ডের পরীক্ষা মে মাসের শেষের দিকে হতে পারে। দশম শ্রেণির পড়ুয়াদের পরীক্ষা জুনের দিকে আয়োজন করা হবে বলেও তিনি জানান। এর পাশাপাশি তিনি আরও উল্লেখ করে বলেন, চূড়ান্ত তারিখগুলি এখনও ঠিক করা হয়ে ওঠেনি, তবে স্বাস্থ্য পরিস্থিতি নিবিড়ভাবে পর্যবেক্ষণ করার পরে পরীক্ষার নতুন তারিখ ঘোষণা করা হবে।

বোর্ড পরীক্ষা করোনার কারণে পিছিয়ে দেওয়ার মতো সিদ্ধান্ত রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী উদ্ধব ঠাকরের সঙ্গে বৈঠকের পরে নেওয়া হয়েছে বলেও জানান বর্ষা গায়কোয়াড। এর সঙ্গে তিনি যোগ করে বলেন, রাজ্যের মুখ্যমন্ত্রী এই করোনার সময়ে ছাত্র-ছাত্রীদের স্বাস্থ্যের কথা ভেবে বেশ চিন্তিত রয়েছেন। আর সেই কারণে এপ্রিল মাসের সমস্ত পরীক্ষা আপাতত পড়ুয়াদের কথা ভেবে বন্ধ রাখা হচ্ছে।

পরীক্ষা স্থগিত রাখার বিষয়টি বিভিন্ন স্টেকহোল্ডার – শিক্ষার্থী, শিক্ষক, পিতা-মাতা, বিভিন্ন দল, একাডেমিক এবং টেক জায়ান্টের নির্বাচিত প্রতিনিধিদের সঙ্গে পরামর্শের করে সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। পাশাপাশি শিক্ষার্থীদের স্বাস্থ্য এবং ভবিষ্যতের কথা মাথায় রেখে বিভিন্ন বিকল্প মূল্যায়নের বিষয় ঠিক করা হয়েছিল, যেখানে পরীক্ষা স্থগিত করা সবচেয়ে বাস্তব সমাধান বলে মনে হয় সকলের, বলে জানিয়েছেন শিক্ষামন্ত্রী।

রাজ্যের শিক্ষা দপ্তরের তরফে কেন্দ্রীয় শিক্ষা বিভাগগুলিকেও পরিক্ষার তারিখ পুনর্বিবেচনা করার জন্য অনুরোধ জানানো হয়। টুইটে বর্ষা গায়কোয়াড সেই বিষয়ে জানিয়েছে, পুনর্বিবেচনার জন্য সিবিএসসি, আইসিএসসি, আইবি, কেমব্রিজ বোর্ডগুলির পরীক্ষা পুনর্বিবেচনা করার অনুরোধ জানিয়ে চিঠি পাঠানো হয়েছে।

কিছুদিন আগে মহারাষ্ট্র সরকার নিচু ক্লাসের পড়ুয়াদের সমস্ত পরীক্ষা বাতিল করে করোনার সংক্রমণ বেড়ে চলার কারণে। ছাত্র-ছাত্রীদের এই সময়ে স্বাস্থ্যের কথা ভেবে সরকার পরীক্ষা ছাড়ায় পরের ক্লাসে উত্তীর্ণ করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। আর এবার বোর্ড পরীক্ষার্থীদের কথা মাথায় রেখে সময় পিছিয়ে দেওয়ার মতো সিদ্ধান্ত নিয়েছে মহারাষ্ট্র সরকার।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.