সৌপ্তিক বন্দ্যোপাধ্যায়, কলকাতা: ‘নুন দিয়ে তারা ছাঁচিপান সাজে, চুন দেয় তারা ডালনায়’। রবি ঠাকুরের বিখ্যাত কবিতা অনুযায়ী যেমন নুন দিয়ে ছাঁচিপান খাওয়া যায়, সেই নুন দিয়ে তেমন রসগোল্লাও খাওয়া যায়। এমন অদ্ভুত কাণ্ডটি করতেন স্বয়ং উত্তম কুমার। সব ছাড়া যেতে পারে কিন্তু সামান্য সুগারের জন্য রসগোল্লার স্বাদ ছাড়া যাবে না। এমনটাই ছিল মহানায়কের ভাবখানা।

আরও পড়ুন: OMG! নিজের ছেলেকে বার্থডে উইশ করলেন মিমি

আজকালকার নায়ক নায়িকারা খাওয়া দাওয়া নিয়ে প্রচণ্ড সচেতন। ডায়েট চার্ট মেনে সমস্ত খাওয়া দাওয়া করেন। কিন্তু উত্তম কুমার হতে পারেন মহানায়ক কিন্তু তিনি ওসবের বিশেষ কেয়ার করতেন না। নিয়ম করে শরীরচর্চা করতেন, মর্নিং ওয়াকে যেতেন কিন্তু রসগোল্লার নাম শুনলেই তাঁর মন মানত না।

রসগোল্লার মিষ্টি স্বাদ থেকে জিভকে কিভাবে আটকানো যায় সেটা তাঁর জানা ছিল না। কিন্তু খেলেও গোল বাঁধতে পারে। কারন সুগার ডায়াবেটিস বাসা বেঁধেছে শরীরে। উপায় ? নুন দিয়ে খাও রসগোল্লা। খানিক ‘সাপও মড়ল, লাঠিও ভাংলো না’ গোছের।

আরও পড়ুন: Statue of Unity-র লিফটে আটকে গেলেন মোদী

মিষ্টিতে লাল চিহ্ন বসিয়েছিলেন ডাক্তার। তাই বলে বাঙালি হয়ে জন্মে মিষ্টি কী আর রসগোল্লা ছাডা় যায়! নুন ছড়িয়ে রসগোল্লা খাওয়ার এই অদ্ভুত পদ্ধতিটি বার করেছিলেন মহানায়ক নিজেই। তিনি মনে করতেন এইভাবে খেলে বোধহয় শরীর স্বাস্থ্যের তেমন ক্ষতি হয় না। তাই এমন পন্থায় রসগোল্লা খেতেন মহানায়ক উত্তম কুমার।

থালার চারপাশে এক একটা বাটিতে সাজানো মাংস, মাছ, ডাল, সবজি, মিষ্টি ও রকমারি ফল। এতসবের পরেও মন ওঠে না বাঙালির। শেষপাতে মন সব সময় বলে ‘কুছ মিঠা হো যায়ে’। মুখ মিষ্টি না হলে সব কিছুই মাটি। মিষ্টি বাঙালির এই চিরাচরিত সম্পর্কের উপর কোনওদিন যেতে পারেননি মহানায়কও। নায়ক ছবিতে তিনি ডায়লগ দিতে পারেন ‘আই উইল গো টু দ্য টপ, টু দ্য টপ,টু দ্য টপ’ কিন্তু রসগোল্লাটি সামনে এলে তিনি জিভেরলোভের উপরে যেতে পারতেন না। রসগোল্লা পছন্দ করেন না এমন বাঙালি পাওয়া যাবে না।

আরও পড়ুন: ‘শহরকে কলুষিত করতেই পানের পিক ফেলেছে হিংসুটেরা’

এই তালিকায় সাহিত্যিক সৈয়দ মুজতবা সিরাজ যেমন রয়েছেন তেমন রয়েছেন স্যার আশুতোষ মুখোপাধ্যায়। প্রত্যেকেরই রসগোল্লা নিয়ে বহু চর্চিত গল্প রয়েছে। যা সত্যি। আজ বাংলার মিষ্টি হিসাবে রসগোল্লার জি.আই ট্যাগ পাওয়ার এক বছর পূর্তি। এমন সুদিনে রসগোল্লার স্রষ্টা নবীন ময়রার জন্য একবার বলতেই হয় ‘যুগ যুগ জিও নবীন ভায়া’।

প্রশ্ন অনেক: দশম পর্ব

রবীন্দ্রনাথ শুধু বিশ্বকবিই শুধু নন, ছিলেন সমাজ সংস্কারকও