নয়াদিল্লি: আদর্শ আচরণবিধি ভাঙায় রাজ্যে প্রথম কমিশনের কোপ৷ বিজেপির নদিয়া উত্তরের সভাপতি মহাদেব সরকারের বিরুদ্ধে ৪৮ ঘন্টার জন্য নিষেধাজ্ঞা জারি করল নির্বাচন কমিশন৷

কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মহুয়া মৈত্র সম্পর্কে কুরুচিকর মন্তব্য করেন মহাদের সরকার৷ কমিশন ও থানায় অভিযোগ জানান মহুয়া৷ তার ভিত্তিতেই আদালতের নির্দেশে কমিশনের পদক্ষেপ৷ শুক্রবার বিকেল ৪টে থেকে রবিবার বিকেল ৪টে, আগামী ৪৮ ঘন্টা মহাদেব সরকার বিজেপি প্রার্থীর হয়ে প্রচারে অংশ নিতে পারবেন না৷ আপাতত ওই সময়ের মধ্যে নির্বাচনী সব কার্যকলাপ থেকে দূরে থাকতে হবে তাকে৷ এমনটাই নির্দেশ দিয়েছে কমিশন৷

আরও পড়ুন: সিউড়িতে মমতার বক্তব্য নিয়ে নির্বাচন কমিশনে বিজেপি

মহাদেব সরকারের বিরুদ্ধে কমিশনের পদক্ষেপকে স্বাগত জানিয়েছেন কৃষ্ণনগরের তৃণমূল প্রার্থী মহুয়া মৈত্র৷ তিনি বলনে, ‘‘ওই মন্তব্য সব নারীদের প্রতি অপমান৷ তাই কমিশন ও থানায় নালিশ করেছিলাম৷ কমিশনের পদক্ষেপে আমি স্বস্তি পেয়েছি৷’’ বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ জানিয়েছেন, ‘‘কমিশনের নির্দেশ মেনে চলা হবে৷ দোষ করলে শাস্তি পেতেই হবে৷

বৃহস্পতিবারই বিজেপির নদিয়া উত্তরের জেলা সভাপতি মহাদেব সরকারের বিরুদ্ধে কমিশনকে পদক্ষেপ করার নির্দেশ দেয় সুপ্রিম কোর্ট৷ কৃষ্ণনগর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মহুয়া মৈত্র সম্পর্কে কুরুচিকর মন্তব্য করেন মহাদের সরকার৷ অভিযোগ জানান তৃণমূল প্রার্থী৷ তার জেরেই সুপ্রিম কোর্টের প্রধান বিচারপতির ডিভিশন বেঞ্চ এই নির্দেশ দেয় নির্বাচন কমিশনকে৷

গত ২৩ এপ্রিল কৃষ্ণনগরের এক সভায় বক্তব্য রাখছিলেন মহাদেব সরকার৷ সেখানেই তৃণমূলের উন্নয়নের চরম বিরোধীতা করেন তিনি৷ প্রশ্ন তলেন জেলার আইন শৃঙ্খলা নিয়ে৷ এরপরই তিনি কৃষ্ণনগরের তৃণমূল প্রার্থীকে ব্যক্তিগত আক্রমণ করেন৷

আরও পড়ুন: কংগ্রেসকে ভোট দেওয়ায় স্ত্রীয়ের মুখে অ্যাসিড, কমিশনে যাচ্ছেন প্রদীপ ভট্টাচার্য

ওই সভাতে বিজেপির নদিয়া উত্তরের সভাপতি মহুয়া মৈত্রেকে ‘সুন্দরী রমণী’ বলেন৷ রাজ্যের শাসক দল সৌন্দর্য্যে ভর করেই ভোট বৈতরণী পারের চেষ্টা করছেন বলে দাবি করেন মহাদেব সরকার৷ পরে মহুয়াদেবীকে উদ্দেশ্য করে বলেন, ‘‘বিদেশে পড়ায় ভারতীয় সংস্কৃতি ভুলে গিয়েছেন আপনি৷ লজ্জাই নারীর ভূষণ৷ আপনি রঙিন জল পান করেন৷ আপনার লজ্জা নেই৷ আপনাকে ভারতীয় নারীরা মেনে নেবে না৷’’

মহাদেব সরকারের ওই মন্তব্যের পরই নিন্দার ঝড় ওঠে৷ প্রতিবাদে মুখর হয় তৃণমূল৷ বিজেপির জেলা উত্তরের সাংগঠনিক সভাপতির বিরুদ্ধে অভিযোগ দায়ের করেন মহুয়া মৈত্র৷ সেই অভিযোগের ভিত্তিতেই গতকাল নির্বাচন কমিশনকে মহাদেব সরকারের বিরুদ্ধে পদক্ষেপ করার নির্দেশ দেওয়া হয়৷