সুভাষ বৈদ্য,কলকাতা: আরএসএসের রাজনৈতিক সংগঠন বিজেপিকে অনেকেই হিন্দুত্ববাদী দল বলে থাকেন৷ সেই বিজেপিই এবার বাংলায় মুসলিম মহিলা প্রার্থী দিয়ে নজির সৃষ্টি করেছে৷ জঙ্গিপুর লোকসভা থেকে বিজেপির হয়ে লড়বেন মাফুজা খাতুন৷ তবে মাফুজা বাদে এখনও পর্যন্ত বিজেপির আরও চারজন মহিলা প্রার্থী রয়েছেন৷ এরা সংখ্যালঘু নন৷

গত শনিবার বিজেপি তাদের চতুর্থ প্রার্থী তালিকা ঘোষণা করে৷ সেই তালিকায় মাফুজার নাম প্রকাশ করা হয়৷ তিনি প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক৷ এবার পদ্ম শিবিরের হয়ে মুর্শিদাবাদ জেলার জঙ্গিপুর লোকসভা কেন্দ্র থেকে লড়বেন৷ তার প্রতিদ্বন্দ্বী প্রার্থী হলেন কংগ্রেসের অভিজিৎ মুখোপাধ্যায়, সিপিএমের জুলফিকার আলি, তৃণমুলের খালিদুর রহমান৷ এই লোকসভা কেন্দ্রে প্রায় ৬৮ শতাংশ ভোটার হল সংখ্যালঘু৷

এক নজরে মাফুজা খাতুন
প্রাক্তন সিপিএম বিধায়ক মাফুজা খাতুন৷ বছর দুই আগে বিজেপিতে যোগ দেন৷ কারণ তিন তালাকে সিপিএমের অবস্থানের বিরোধিতা করে তিনি দল ত্যাগ করেন৷

২০০১ ও ২০০৬ বিধানসভা ভোটে সিপিএমের হয়ে দক্ষিণ দিনাজপুরের কুমারগঞ্জ আসনে জয়লাভ করেন তিনি৷ ২০১১ ও ২০১৬ বিধানসভা ভোটে ওই আসনেই তার পরাজয় হয়৷ তার আগে ১৯৯৩ সালে দক্ষিণ দিনাজপুরের গঙ্গারামপুর পঞ্চায়েতের সিপিএমের প্রধান ছিলেন৷ ১৯৯৮ সালে সিপিএমের দখলে থাকা গঙ্গারামপুর পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি ছিলেন বর্তমানের বিজেপি প্রার্থী মাফুজা খাতুন৷

জঙ্গিপুর থেকে কেন প্রার্থী
যেহেতু মুর্শিদাবাদের জঙ্গিপুরে প্রায় ৬৮ শতাংশ ভোটারই হল সংখ্যালঘু৷ সেখানে একজন মুসলিম মহিলাকে প্রার্থী করে শুধু জঙ্গিপুরেই নয় রাজ্যে মুসলিম ভোটারদের আস্থা অর্জন করতে চাইছে বিজেপি৷ রাজ্য বিজেপির সাধারণ সম্পাদক সায়ন্তন বসুর অভিযোগ, পশ্চিমবঙ্গে তৃণমূল সংখ্যালঘুদের বোঝানের চেষ্টা করছে বিজেপি হিন্দুত্ববাদী ও সংখ্যালঘু বিরোধী দল৷ তাই যদি হত তাহলে বিজেপির হয়ে কোনও সংখ্যালঘু ভোটে দাঁড়াত না৷ সম্প্রতি পঞ্চায়েত নির্বাচনেও রাজ্যে বিজেপির প্রায় ২৫০জন মুসলিম প্রার্থী জিতেছে।