ঢাকা: শেখ মুজিবুর রহমানের নেতৃত্বে স্বাধীনতার লড়াইয়ে রক্তাক্ত মুক্তিযুদ্ধে অংশ নিয়েছিলেন লাখো মানুষ৷ বিজয় দিবসের অনুষ্ঠানে সেই বঙ্গবন্ধুর খুনিদের জন্য দোয়া চেয়ে বিতর্কে এক মাদ্রাসা অধ্যক্ষ৷

বাংলাদেশের সংবাদ মাধ্যম জানাচ্ছে, টাঙ্গাইলের গোপালপুর দারুল উলুম কামিল মাদ্রাসার অধ্যক্ষ ড. ফায়জুল আমীর সরকার প্রকাশ্যে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের জন্য দোয়া করেছেন৷ সেই কারণে তাকে আটক করা হয়েছে৷

১৯৭১ সালে স্বাধীনতা পাওয়ার পর ১৯৭৫ সালে খুন হয়েছিলেন বঙ্গবন্ধু৷ খুনিদের অনেকই বিদেশে পলাতক৷ আন্তর্জাতিক আইন মেনে তাদের ফিরিয়ে এনে বিচার করার প্রক্রিয়া চালাচ্ছে বাংলাদেশ সরকার৷

জানা গিয়েছে, শনিবার সকালে টাঙ্গাইলের গোপালপুরে মুক্তিযোদ্ধা সংসদ কার্যালয়ে বঙ্গবন্ধুর প্রতিকৃতিতে শ্রদ্ধা নিবেদনের আয়োজন করা হয়৷ একইসঙ্গে মুক্তিযুদ্ধে নিহত গেরিলাদের উদ্দেশ্যে প্রার্থনার আয়োজন করা হয়৷ এই অনুষ্ঠানে উপস্থিত হয়ে স্থানীয় মাদ্রাসার অধ্যক্ষ বলেন, ‘হে আল্লা তুমি পঁচাত্তরে বঙ্গবন্ধুর হত্যাকারী, যাদের ফাঁসি হয়েছে তাদের বেহেস্ত নসিব করো। হে আল্লা তুমি বিচারের পর তাদেরকে বেহেস্ত নসিব করো।’

এমন দোয়া শুনে উপস্থিত সকলেই হতবাক হয়ে যান৷ দেখা দেয় উত্তেজনা৷ পরে পুলিশ এসে ওই মাদ্রাসা অধ্যক্ষকে আটক করে৷
স্থানীয় আওয়ামি লিগ নেতৃত্বের অভিযোগ, অধ্যক্ষ ড. ফায়জুল জামাত ইসলামির সঙ্গে জড়িত৷ সে মুক্তিযুদ্ধ বিরোধী৷ তাই সে বঙ্গবন্ধুর খুনিদের জন্য দোয়া চেয়েছে৷ আমরা তার কঠিন শাস্তি চাই।’

গোপালপুর থানার ওসি হাসান আল মামুন বলেন, ঘটনার পর পরই অধ্যক্ষকে আটক করা হয়েছে। তদন্ত সাপেক্ষে তার বিরুদ্ধে আইন মেনেই ব্যবস্থা নেওয়া হবে।