ভোপাল: গণনাকেন্দ্রে মৃত্যু হল এক কংগ্রেস নেতার৷ মর্মান্তিক ঘটনাটি মধ্যপ্রদেশের শেহোর জেলার৷ বৃহস্পতিবার যখন ভোটগণনা চলছিল সেই সময় গণনাকেন্দ্রেই ছিলেন ওই কংগ্রেস নেতা৷ সেখানেই অসুস্থ বোধ করেন৷ পরে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়া হলে মৃত বলে ঘোষণা করা হয়৷

আরও পড়ুন: মোদীর জয়ে বন্ধুত্বের অভিনন্দন এল রাশিয়া, ইজরায়েল থেকে

শোহোর জেলার সভাপতি রতন সিং ঠাকুর এদিন হৃদরোগে আক্রান্ত হয়ে মারা যান৷ সহকর্মীদের দাবি, লোকসভা ভোটের ফল দেখেই বুকে ব্যাথা অনুভব করতে শুরু করেন৷ এই ফল তিনি মেনে নিতে পারছিলেন না৷ ভোটের উত্তেজনা ও হারের ধাক্কা সামলাতে না পেরে হৃদরোগে আক্রান্ত হন৷ গণনাকেন্দ্রে থাকাকালীন বুকে ব্যাথা অনুভব করেন৷ তারপরেই মাটিতে শুয়ে পড়েন৷ অবস্থা গুরুতর বুঝে দলের কর্মীরা রতন সিংকে হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার ব্যবস্থা করেন৷ সেখান থেকেই মারা যাওয়ার খবর মেলে৷

আরও পড়ুন: মুকুল হারানোর ফল হাতেনাতে পাচ্ছেন মমতা

গোটা দেশের মতো মধ্যপ্রদেশেও শোচনীয় হারের মুখে কংগ্রেস৷ রাজ্যের ২৯টি কেন্দ্রের মধ্যে ২৮টি আসনে ফুটেছে পদ্ম৷ অথচ মাসখানেক আগে রাজনৈতিক পালাবদল হয়৷ ১৫ বছরের বিজেপি সরকারে ইতি টানেন রাজ্যের মানুষ৷ আস্থা রাখেন কংগ্রেসের কমলনাথে৷ অথচ বিধানসভা ভোটের ফলাফলকে এই ভোটে কাজে লাগাতে পুরোপুরি ব্যর্থ হল কংগ্রেস৷ মত রাজনৈতিক মহলের৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.