গান্ধীনগর:  ফ্ল্যাটে হানা দিয়ে মধুচক্রের পর্দাফাঁস করল পুলিশ৷ গুজরাতের ভাদোদরার কারেলিবাগের একটি ফ্ল্যাটে হানা দেয় পুলিশ। সেখান থেকে হাতেনাতে ২ অভিযুক্তকে গ্রেফতার করেছে পুলিশ৷ উদ্ধার হয় পাঁচ মহিলা, যাদের মধ্যে একজন বাংলাদেশের৷

জানা গিয়েছে, উওমেনজ হেলপলাইন ১৮১ অভ্যামে ওই দুই অভিযুক্তের বিরুদ্ধে একটি ফোন আসে৷ বলা হয়, বিজয় ওরফে বজেন্দ্র গুপ্তা এবং আনন্না ওরফে এমতিজ শেখ, অন্য শহর থেকে মহিলাদের নিয়ে এসে দেহব্যবসার কাজে নামাচ্ছে৷ অভ্যামের আধিকারিকরা কারেলিবাগ পুলিশ স্টেশনে বিষয়টি জানান এবং তাঁদের সঙ্গে ওই ফ্ল্যাটটিতে উপস্থিত হন৷ সেখানেই অভিযুক্তদের গ্রেফতার করে দেহব্যবসার কাজে যুক্ত মহিলাদের উদ্ধার করা হয়৷

ফাইল ছবি

পুলিশের মতে, বজেন্দ্র গুপ্তা ২ মাস আগে এখানে ভাড়াতে প্ল্যাটটি নেয়৷ সে এবং ওই মহিলারা একইসঙ্গে সেখানে থাকত৷ গ্রাহকদের চাহিদা মতো মহিলাদের প্রায়শই বিভিন্ন জায়গায় পাঠানো হত৷ উদ্ধার হওয়া মহিলাদের মধ্যে ২ জন কলকাতা, এজন থানে, আরেকজন মুম্বইয়ের৷কীভাবে এই দেহব্যবসার কাজ করে যাচ্ছিল, গ্রাহকদের নম্বর কীভাবে জোগাড় করছিল অভিযুক্তরা তাইই এখন খতিয়ে দেখছে পুলিশ৷ গুপ্তা এই ধরণের অপরাধমূলক কাজে আগেও জড়িত ছিল বলে মনে করছেন কারেলিবাগ পুলিশ স্টেশনের ইন্সপেক্টর আরএ জাদেজা৷ অভিযুক্তদের বিরুদ্ধে মামলা দায়ের করা হয়েছে৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.