কলকাতা : তীব্র শ্বাসকষ্ট নিয়ে করোনা আক্রান্ত হয়ে এসএসকেএম হাসপাতালে ভর্তি হলেন তৃণমূল নেতা ও কামারহাটি তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্র। আজই তাঁর করোনা পরীক্ষা হয়, তাতে করোনা ধরা পরে। রাজ্যে করোনা পরিস্থিতি যে ভয়াবহ আকার নিয়েছে তাতে মদন মিত্রর এই শ্বাসকষ্ট করোনা আক্রান্ত হওয়া চিন্তার বিষয়। বুধবারই তাঁর তীব্র শ্বাসকষ্ট হওয়ায় তাঁকে এসএসকেএম হাসপাতালে ভরতি করা হয়েছে। এর আগে পঞ্চম দফা ভোটের দিন মদন মিত্র অসুস্থ হয়ে পড়েছিলেন । সেদিনও তাঁর তীব্র শ্বাসকষ্ট হচ্ছিল। বুধবার শ্বাসকষ্টের সমস্যা আররও বেড়ে যাওয়ায় তাঁকে চিকিৎসকরের পরামর্শে হাসপাতালে ভরতি করা হয়।

মদন মিত্র এসএসকেএম হাসপাতালের উডবার্ন ওয়ার্ডের ১০২ নম্বর কেবিনে ভর্তি হয়েছেন। হাসপাতাল সিত্রে জানা যাচ্ছে, মদন মিত্রর শ্বাসকষ্ট থাকলেও শারীরিক অবস্থা স্থিতিশীল রয়েছে। শ্বাসকষ্ট থেকে তাঁকে রেহাই দিতে নেবুলাইজার দেওয়া হচ্ছে । চিকিৎসকরা তাঁর একাধিক শারীরিক পরীক্ষা করছেন। মদন মিত্র করোনা আক্রান্ত কি না, তাও পরীক্ষা করে দেখা হচ্ছে।

কামারহাটি পত্রার্থী হওয়ার পর দীর্ঘ প্রচারের ফলে তাঁর শারীরিক সমস্যা হতে পারে বলে চিকিৎসকদের অনুমান। তবে হঠাৎ প্রচন্ড গরম আর করোনা সংক্রমণের সম্ভাবনা উপেক্ষা করে মদন মিত্র সকাল বিকেল টানা প্রায় রোজদিন নির্বাচনী প্রচার চালিয়েছেন। রোড শো করেছিরেন, এক মোটর সাইকেল চালিয়ে বিশাল মোটর সাইকেল মিছিল করেছেন। প্রচারের জন্য তিনি দিনে প্রায় ৮ থেকে ১০ কিলোমিটার হেঁটেছেন। তবে আচমকাই পঞ্চম দফা ভোটের দিন বিকেলে মদন মিত্র অসুস্থ হয়ে পড়েন। সঙ্গে সঙ্গে তাঁকে কামারহাটির দলীয় কার্যালয়ে সরিয়ে নিয়ে যাওয়া হয়। সেখানেই অক্সিজেন দেওয়া হয় মদন মিত্রকে।

করোনা পরিস্থিতিতে মন্দ মিত্রর এখন দলের চিন্তা বাড়াচ্ছে। মদন মিত্রর শ্বাসকষ্ট জনিত সমস্যা করোনা পরিস্থিতিতে চিকিৎসকদের চিন্তা বাড়াচ্ছে। তাই তাঁর করোনা পরীক্ষা হচ্ছে। তবে মদন মিত্রর শ্বাসকষ্ট ছাড়া অন্য কোনও শারীরিক সমস্যা আপাতত নেই বলে এসএসকেএম সূত্রে জানা গেছে। তবে যতক্ষণ পর্যন্ত না করোনা পরীক্ষার রিপোর্ট আসছে ততক্ষণ চিকিৎসকেরা নিশ্চিত করে কিছু বলতে পারছেন না।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.