নিউজ ডেস্ক, কলকাতা: ভাটপাড়া উত্তপ্ত৷ অথচ নির্বাচন কমিশন চোখে কালো কাপড় বেঁধে রয়েছে৷ এমনই অভিযোগ ভাটপাড়ার তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্রের৷ মদন মিত্র এদিন কমিশনে বিজেপির হিংসা নিয়ে অভিযোগ জানান৷

তাঁর দাবি, উপনির্বাচনের দিন এখানে কেন্দ্রীয় বাহিনী বিজেপি নেতা অর্জুন সিংয়ের উঞ্ছবৃত্তি করেছে৷ তাই ৫টি বুথে পুনর্নির্বাচনের দাবি তুলেছেন মদন৷ তাঁর দাবি না মানা হলে সত্যাগ্রহ আন্দোলনের হুঁশিয়ারি দিয়েছেন তিনি৷ এদিকে ভাটপাড়ার উতপ্ত পরিস্থিতির জন্য বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীদের দায়ী করেছেন মদন৷

আরও পড়ুন : ভাটপাড়ায় ভোট পরবর্তী হিংসা, ১৪৪ ধারা জারি কমিশনের

তিনি জানিয়েছেন, বিহার মুঙ্গের থেকে দাগী অপরাধীদের ভাড়া করে নিয়ে এসেছে অর্জুন সিং। তারাই এলাকায় বোমাবাজি করেছে হামলা চালিয়েছে। আমাদের দলের কর্মীরা আক্রান্ত হয়েছে। কেন্দ্রীয় বাহিনীকে সঙ্গে নিয়ে বিজেপি আশ্রিত দুষ্কৃতীরা এই হামলা চালিয়েছে। আমাদের অসংখ্য দলীয় কর্মী বোমার আঘাতে জখম হয়েছে। আমি নির্বাচন কমিশনকে জানিয়েছি গোটা ঘটনা। নির্বাচন কমিশনের হস্তক্ষেপ চাইছি। আমরা শান্তির পক্ষে। এলাকায় শান্তি ফিরে আসুক।”

তবে এদিন ভাটপাড়ায় ভোটপরবর্তী হিংসার ঘটনায় হস্তক্ষেপ করে কমিশন৷ জারি করা হয় ১৪৪ ধারা৷ শুরু হয় কেন্দ্রীয় বাহিনীর টহল৷ তৃণমূল বিজেপি সংঘর্ষের ঘটনায় সোমবার সকাল থেকেই থমথমে গোটা ভাটপাড়া৷ রবিবার বিকেলে ভাটপাড়া বিধানসভার উপনির্বাচন শেষ হবার পর থেকে লাগাতার হিংসার ঘটনা ঘটেছে বলে দাবি স্থানীয়দের৷

আরও পড়ুন : ভোট শেষ, এবার মৌনব্রত পালন করে ‘প্রায়শ্চিত্ত’ সাধ্বী প্রজ্ঞার

স্থানীয় বিজেপি সমর্থকদের অভিযোগ শাসকদলের আশ্রিত বহিরাগত দুষ্কৃতীরা এলাকায় ঢুকে অনবরত বোমাবাজি করেছে। তাদের বাড়ি ঘরে ব্যাপক ভাঙচুর চালানো হয়৷ জগদ্দল থানার পুলিশের সামনে এই ঘটনা ঘটলেও পুলিশ ওই বহিরাগত দুষ্কৃতীদের গ্রেফতার করেনি।

এই পরিস্থিতিতে সোমবার সারাদিন শুনশান ছিল রাস্তাঘাট। দোকানপাট খোলেনি বললেই চলে। ভাটপাড়া এলাকার স্থানীয় বাসিন্দারা সোমবার সকালে অভিযুক্ত দুষ্কৃতীদের গ্রেফতারের দাবিতে ও এলাকায় শান্তি ফেরানোর দাবিতে কাঁকিনাড়া রেল স্টেশন অবরোধ করে রাখে।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV