কলকাতাঃ  ভোট পরবর্তী হিংসায় উত্তপ্ত ভাটপাড়া। গত দুদিন ধরে লাগাতার সংঘর্ষে ঘটনা দেখেছে ভাটপাড়ার মানুষ। কিন্তু এখনও পর্যন্ত গোটা এলাকা থমথমে। যে কোনও মুহূর্তে ফের নতুন করে অশান্তি দানা বাঁধতে পারে। যদিও যে কোনও অপ্রীতিকর ঘটনা এড়াতে কার্যত গোটা এলাকা ঘিরে রেখেছে কেন্দ্রীয় বাহিনী এবং রাজ্য পুলিশ। এই পরিস্থিতিতে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী অর্জুনকে বার্তা দিলেন মদন মিত্র।

উল্লেখ্য, গত কয়েকদিন আগে তৃণমূল ছেড়ে বিজেপিতে যোগ দেন অর্জুন সিং। বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রে তাঁকেই প্রার্থী করতে হবে, এই শর্তেই মূলত বিজেপিতে যোগদানের সিদ্ধান্ত তাঁর। সেই মতো অর্জুনের খাসতালুকেই তাঁকে প্রার্থী করে বিজেপি। প্রার্থী হওয়াতে ভাটপাড়া বিধানসভার বিধায়ক থেকে ইস্তফা দেয় অর্জুন। এরপর সেই লোকসভার পাশাপাশি ভাটপাড়া বিধানসভা উপনির্বাচনের দিন ঘোষণা করে কমিশন। সেই মতো সেখানে প্রার্থী করা হয় তৃণমূলের প্রাক্তন বিধায়ক তথা মন্ত্রী মদন মিত্রকে।

পালটা বিজেপিও অর্জুনের ছেলে পবন সিংকে প্রার্থী করে বিজেপি। রীতিমত প্রেস্টিজিয়াস ফাইট দুপক্ষের। লোকসভা ভোটের দিন তো বটেই বিধানসভা উপ-নির্বাচনের দিন উত্তপ্ত হয়ে ওঠে গোটা ভাটপাড়া। বেলা গড়াতেই একের পর এক বোমাবাজি-সন্ত্রাসের খবর আসতে থাকে। শুধু তাই নয়, রাতের দিকে অর্জুন সিংয়ের বাড়ি লক্ষ করে চলে বোমাবাজি।

কিন্তু সেখানেই শেষ নয়, ভোট মিটে গেলেই গোটা এলাকাজুড়ে হিংসা চলতে থাকে। চলে মুহুর মুহুর বোমাবাজি আর দুষ্কৃতী তাণ্ডব।মঙ্গলবার ব্যাপক বোমাবাজির পর বুধবারও বোমা বাঁধতে গিয়ে এক জনের মৃত্যু হয়েছে বলে অভিযোগ। সন্ত্রাসের জন্য বিজেপি দোষ চাপাচ্ছে তৃণমূলের ঘাড়ে। অভিযোগ উড়িয়ে পাল্টা বিজেপির দিকে অভিযোগের আঙুল তুলছে তৃণমূলও।

এই অবস্থায় আসরে নেমেছেন মদন মিত্র। এই বিষয়ে ফেসবুকে লাইভের মাধ্যমে একটি ভিডিও বার্তা দিয়েছেন মদন মিত্র। মূলত অর্জুনের বিরুদ্ধে মদনের অভিযোগ, ভোটে সন্ত্রাস, রিগিং, ছাপ্পা, জালিয়াতি সবই করেছেন অর্জুন। এমনকি প্রতারণা করেই নিজের আর ছেলের টিকিট বিজেপির কাছ থেকে অর্জুন বাগিয়ে নিয়েছে বলেও চাঞ্চল্যকর অভিযোগ তুলেছেন তৃণমূল প্রাক্তন বিধায়ক। শুধু তাই নয়, ওই ভিডিও বার্তায় মদন বলেছেন, ‘‘আর গুন্ডামি করিস না অর্জুন। আমি তোর দাদার মতো বলছি, আর আগুন জ্বালাস না। ভোট তো হয়ে গিয়েছে। জোচ্চুরি, রিগিং, গুন্ডামি, রক্ত ঝরানো কোনওটাই বাদ দিসনি। যে মুকুল তোকে নিয়ে এল, সেই মুকুলের বিরুদ্ধেই তুই কী করলি? যাই হোক, ভাল থাকিস, দেখা হবে ২৩ তারিখ। ’’