প্রতীতি ঘোষ, বারাকপুর: নির্বাচন কমিশন আমার থেকে টাকা নেওয়া স্বত্বেও আমাকে ঠিক করে প্রচার করতে দিল না। আমাকে বলা হয়েছিল আমি শুক্রবার পর্যন্ত প্রচার করার সুযোগ পাবো। কিন্তু কার স্বার্থে নির্বাচন কমিশন প্রচারের সময় ২০ ঘণ্টা কমিয়ে দিলেন একজন প্রার্থী হিসেবে তার জবাব চাই। তাই তিনি ভাটপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মদন মিত্র নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাওয়ার কথা জানান৷

সপ্তদশ লোকসভায় আগামী ১৯ মে শেষ দফার নির্বাচন৷ সেই দিনই রাজ্যের নয়টি কেন্দ্রের সঙ্গে উত্তর ২৪ পরগণার ভাটপাড়া বিধানসভার কেন্দ্রের উপনির্বাচন অনুষ্ঠিত হবে৷ সেই অর্থে শুক্রবারই ছিল নির্বাচনী প্রচারের শেষ দিন৷ কিন্তু নির্বাচন কমিশনের নতুন নির্দেশ অনুযায়ী বৃহস্পতিবার রাত ১০ টা পর্যন্তই ভোটের প্রচার করতে পারবেন রাজনৈতিক দলের প্রার্থীরা। হঠাৎ লাগু হওয়া এই ধরনের নির্বাচনী নিয়মের ফলে প্রচার করবার সময় অনেকটা কমে গিয়েছে প্রার্থীদের হাত থেকে। আর তাতেই বেশ ক্ষুব্ধ ভাটপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মদন মিত্র।

তিনি বৃহস্পতিবার দুপুরে নির্বাচন কমিশনের এই নতুন নিয়মের বিরোধিতা করে রাস্তায় নামেন। এদিন তৃণমূল কংগ্রেস প্রার্থী মদন মিত্র নির্বাচন কমিশনের নির্বাচনী প্রচারের সময় সীমা কমিয়ে দেওয়ার নিয়মের বিরোধিতা করেন৷ তিনি প্রায় কয়েকশো কর্মী সমর্থকদের নিয়ে ঘোষপাড়া রোডে পায়ে হেঁটে এক মিছিল করেন।

তিনি মিছিলে হাঁটতে হাঁটতে বলেন, ‘‘রাজ্যের বিরোধী পক্ষ নিজেদের হেরে যেতে দেখে রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে ব্যবহার করে এই নিয়ম চালু করেছে। আমি এর জবাব চেয়ে নির্বাচন কমিশনের বিরুদ্ধে সুপ্রিম কোর্টে যাব। কারণ আমাদের রাজ্যে কোন জরুরি অবস্থা জারি হয়নি।’’

এই দিনের মিছিল প্রসঙ্গে বলেন, ‘‘আজকের মিছিল কোন প্রচার মিছিল নয়, আজকের মিছিল প্রতিবাদের মিছিল৷ রাষ্ট্রীয় ক্ষমতাকে কাজে লাগিয়ে নির্বাচন কমিশনকে হুমকি দিয়ে এরা নির্বাচনী প্রচার বন্ধ করছে সেটা মানুষকে জানানোর জন্য এই মিছিল করা।’’

অর্জুন সিং প্রসঙ্গে মদন বাবু বলেন, ‘‘অর্জুন সিং ভাটপাড়ার তৃণমূল কাউন্সিলর৷ সত্যেন রায় এবং আমাকে মেরে ফেলার চেষ্টা করছে।’’ অন্য দিকে বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থী অর্জুন সিং মদন বাবুর আনা এই অভিযোগ অস্বীকার করেন৷ তিনি বলেন, ‘‘তৃণমূল কংগ্রেস আর প্রার্থী পেল না মদ মাতাল মদন মিত্রকে প্রার্থী করেছে৷ যে মানুষ নিজের হুশে থাকে না তার আনা অভিযোগের উত্তর কি দেব। যার কিডনি লিভার খারাপ হয়ে গিয়েছে তাকে কেউ কেন মারতে যাবে৷ আর আমরা রাজনীতি করি মদন মিত্রের এই সব কথা উস্কানি মূলক কথা ছাড়া আর কিছু না।’’

এদিনের এই প্রতিবাদ মিছিলে ভাটপাড়া বিধানসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী মদন মিত্র ছাড়াও উপস্থিত ছিলেন অভিনেতা সোহম, বারাকপুর লোকসভা কেন্দ্রের তৃণমূল প্রার্থী দীনেশ ত্রিবেদী ও ভাটপাড়া পুরসভার তৃণমূল কাউন্সিলররা।