কেপ্টাউন: সাদা চামড়া এবং কালো চামড়ার মানুষদের পৃথকীকরণের একটা ইতিহাস জড়িয়ে রয়েছে দক্ষিণ আফ্রিকা নামটার সঙ্গে। তাই বাইশ গজে প্রত্যাবর্তনে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনকে কীভাবে সমর্থন জানাবে দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট, তা নিয়ে আলোচনা চলছে বোর্ডের অন্দরমহলে। এমনটাই জানালেন দক্ষিণ আফ্রিকা ক্রিকেট বোর্ডের ডিরেক্টর তথা প্রাক্তন অধিনায়ক গ্রেম স্মিথ।

এদিকে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনকে সমর্থন জানিয়ে প্রোটিয়া পেসার লুঙ্গি এনগিদির মন্তব্যে সমালোচনার ঝড়। প্রাক্তন দুই প্রোটিয়া ক্রিকেটার রুডি স্টেইন এবং বোয়েটা ডিপেনারের সমালোচনার মুখে পড়তে হল দেশের বর্ষসেরা ওয়ান-ডে এবং টি২০ ক্রিকেটারকে। সম্প্রতি একটি ভার্চুয়াল প্রেস কনফারেন্সে ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ নিয়ে বলতে গিয়ে এনগিদি জানিয়েছিলেন, ‘আমার মনে হয় দল হিসেবে এই আন্দোলনকে নিশ্চয় আমাদের সমর্থন জানানো উচিৎ। আর আমরা যদি সেটা না করি তাহলে অন্তত আমি এই আন্দোলনকে সমর্থন করব। বিষয়টাকে আমাদের গুরুত্ব সহকারে বিবেচনা করা উচিৎ। যেমনটা বাকি বিশ্ব করছে। আমাদের একটা দৃষ্টিভঙ্গি পরিষ্কার করা দরকার।’

এনগিদির এমন মন্তব্য মনপসন্দ হয়নি প্রাক্তন প্রোটিয়া ব্যাটসম্যান রুডি স্টেইনের। তাঁর কথায়, ‘আমি বিশ্বাস করি বর্ণবিদ্বেষের বিরুদ্ধে প্রোটিয়াদের প্রতিবাদ জানানো উচিৎ। কিন্তু ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার’ আন্দোলনকে সমর্থন জানানোর অর্থ দেশের কৃষকদের প্রতি পাশবিক অত্যাচারকে ভুলে যাওয়া।’ আরেক প্রাক্তন ক্রিকেটার বোয়েটা ডিপেনার এনগিদির বক্তব্যের পরিপ্রেক্ষিতে লিখেছেন, ‘ব্ল্যাক লাইভস ম্যাটার একটা বামপন্থী আন্দোলনের বেশি কিছু নয়।’ একইসঙ্গে তিনি প্রোটিয়া ক্রিকেটারকে থমাস সোয়েল, ল্যারি এলডার, ওয়াল্টার উইলিয়ামস, মিল্টন ফ্রিডম্যানদের কথা শুনতে বলেছেন।

প্রাক্তন অফ-স্পিনার আরও কড়া ভাষায় এনগিদির মন্তব্যের বিরোধীতা করেছেন। তাঁর কথায়, ‘এটা বোকামো ছাড়া কিছু নয়। তাঁর যদি মনে হয় সে সমর্থন করুক। কিন্তু প্রোটিয়াদের এর মধ্যে জড়ানোর চেষ্টা যেন সে না করে।’ তিনি আরও বলেন, ‘এনগিদি পরবর্তীতে যখন খাবারটা মুখে তুলতে যাবেন তখন তাঁর ভাবা উচিৎ দেশের কৃষকশ্রেণী কতোটা কষ্টের মধ্যে রয়েছে।’

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ