কলকাতা: গ্রহণের ফেরে জীবনে দুঃখ দুর্দশা আসবে। এই ভয় সবাই পান। কিন্তু জানেন কি খুব সহজ একটি টোটকা রয়েছে, যার মাধ্যমে সুখ সমৃদ্ধি নেমে আসতে পারে আপনার জীবনে। গ্রহণ চলাকালীন এই টোটকা মেনে চললে মনস্কামনা পূর্ণ হয়। উন্নতি হয় চাকরিতে, ব্যবসার শ্রীবৃদ্ধি ঘটে, পারিবারিক স্বাস্থ্য ভালো হয়। এমনই বলছেন জ্যোতিষীরা।

তাঁদের দাবি চন্দ্রগ্রহণ শুরু হলে একটি ঘিয়ের প্রদীপ সামনে রাখুন। শুদ্ধ মনে শুদ্ধ বস্ত্রে উত্তর বা পূর্ব দিকে মুখ করে বসুন।

বাম হাতে পাঁচটি শঙ্খনাভি বা নাভি শঙ্খ নেবেন। ডান হাতে থাকবে জপের মালা। পরমাত্মার নাম স্মরণ করে ৫৪ বার গায়ত্রী মন্ত্র জপ করতে শুরু করুন। জপ সম্পূর্ণ হলে একটি কৌটোর মধ্যে শঙ্খনাভিগুলি রাখবেন। তারপর একটু সিঁদুর ছিটিয়ে কৌটোর মুখ বন্ধ করে দিতে হবে।

পরের দিন গ্রহণ সম্পূর্ণ হলে সেই কৌটোটি ব্যবসার স্থানে, কারখানায়, অফিসে, বা বাড়িতে সিন্দুক বা আলমারিতে তুলে রাখুন। তবে এরই সঙ্গে কিছু অর্থ দান করুন দুঃস্থ মানুষকে।

জ্যোতিষীদের দাবি এই টোটকায় ফল মেলে। বাড়িতে ও অফিসে দুটি কৌটো আলাদা করে রাখতে চাইলে গ্রহণের সময় স্বামী স্ত্রী একসাথে বসে এই টোটকার আচার পালন করুন। বা পরিবারের যে কোনও দুজন একসাথে বসে এই নিয়ম পালন করতে পারেন।

উল্লেখ্য, এই বছরই আরও দুবার চন্দ্র গ্রহণ হবে বলে জানিয়েছেন জ্যোতির্বিজ্ঞানীরা। যদিও ভারতের কোনও অংশ থেকেই এই চন্দ্রগ্রহণ চোখে পড়বে না। জানা গিয়েছে এশিয়ার কিছু অংশ, অস্ট্রেলিয়া ও ইউরোপের কিছু প্রান্তে উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ চোখে পড়বে। ৫ই জুন শুক্রবার চন্দ্রগ্রহণ হতে চলেছে।

তাছাড়াও চন্দ্রগ্রহণ হবে ৫ই জুলাই ও ৩০ নভেম্বর। তবে এবার অর্থাৎ ৫ই জুন হতে চলেছে উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ। কি এই উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ? বিজ্ঞানীরা বলছেন সূর্য, পৃথিবী ও চাঁদ একই পথে চলে এলে শুরু হয় গ্রহণ। এই সময়ে পৃথিবীর ছায়া পড়ে চাঁদের উপর৷ সেই ছায়ায় ঢাকা পড়ায় পৃথিবী থেকে দেখা যায় না রুপোলি চাঁদকে। তাকে বলে পূর্ণগ্রাস চন্দ্রগ্রহণ।

অন্যদিকে, পুরোপুরি ঢাকা না পড়লে সেটাকে বলে আংশিক গ্রহণ। যখন হালকাভাবে ঢাকা পড়ে চাঁদ, কমে যায় তার ঔজ্জ্বল্য, তখন তাকে বলে উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ।উল্লেখ্য, জুন মাসে শুধু উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণই নয়, ২১শে জুন দেখা যাবে বলয়গ্রাস সূর্য গ্রহণও। উপচ্ছায়া চন্দ্রগ্রহণ অনেকটা পূর্ণিমার চাঁদের মতোই দেখতে লাগে। তবে এক্ষেত্রে চাঁদের আলো নিভে আসে অনেকটা।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ