মাদ্রিদ: বার্সেলোনার সঙ্গে অফিসিয়ালি ছ’বছরের সম্পর্কে যবনিকা পড়ল লুইস সুয়ারেজের। নতুন ক্লাব অ্যাটলেটিকো মাদ্রিদে ঊরুগুয়ে স্ট্রাইকারের যোগদানের সম্ভাবনা জোরালো হয়েছিল আগেই। কিন্তু আলভারো মোরাতার অ্যাটলেটিকো ছেড়ে জুভেন্তাসে যোগদানের বিষয়টির উপর অনেকাংশে নির্ভর করছিল সুয়ারেজের অ্যাটলেটিকোয় যোগদানের বিষয়টি। মঙ্গলবার লোনে অ্যাটলেটিকো থেকে তুরিনের ক্লাবে যোগদান করেন স্প্যানিশ স্ট্রাইকার মোরাতা। এরপরই আসন্ন মরশুমে সুয়ারেজের মাদ্রিদের ক্লাবে যোগদানের বিষয়টি নিশ্চিত হয়।

বুধবার ঊরুগুয়ে স্ট্রাইকারের অ্যাটলেটিকোয় যোগদানের বিষয়টি নিশ্চিত করা হয় বার্সেলোনার তরফ থেকে। বৃহস্পতিবার কাতালান ক্লাবে শেষবারের মতো সাংবাদিক সম্মেলন করার পর স্পেনের রাজধানী শহরের উদ্দেশ্যে রওনা হচ্ছেন সুয়ারেজ। বৃহস্পতিবার সাংবাদিক সম্মেলনের শুরুতে চোখের জল বাঁধ মানেনি তাঁর। বার্সার ‘নম্বর নাইন’ বলেন, ‘আমি মাথা উঁচু করেই ক্লাব ছাড়ছি। বিভিন্ন সময় আমার সম্বন্ধে এমন কিছু কথা বলা হয়েছে যেগুলো সত্যি নয়।’ তিনি আরও বলেন, ‘বার্সেলোনায় এসে আমি বেশ কিছু মহান ফুটবলারের সান্নিধ্য পেয়েছি। আমি যেখানেই যাই না কেন ঠান্ডা মাথায় ফুটবল খেলার চেষ্টা করব।’

ডাচ কোচ রোনাল্ড কোম্যান চলতি মরশুমের শুরুতে ম্যানেজারের দায়িত্ব গ্রহণ করার পরেই বার্সেলোনায় বাতিলের খাতায় চলে গিয়েছিলেন সুয়ারেজ। স্বাভাবিকভাবেই ক্লাবও তাঁকে আর রাখতে আগ্রহী ছিল না। সবমিলিয়ে ফ্রি-ট্রান্সফারেই মাদ্রিদের ক্লাবের যোগ দিচ্ছেন বার্সেলোনার সর্বকালের তৃতীয় সর্বোচ্চ গোলদাতা। তবে পারফরম্যান্সের শর্তসাপেক্ষে সুয়ারেজের জন্য পরবর্তীতে ব্লগ্রানা ক্লাবকে ৬ মিলিয়ন ইউরো দিতে পারে অ্যাটলেটিকো। মনে করা হচ্ছে দু’বছরের চুক্তিতেই সুয়ারেজকে দলে নিচ্ছে স্পেনের ক্লাবটি। সুয়ারেজের যোগদানে দিয়েগো সিমোনে প্রশিক্ষণাধীন ক্লাবের ফরোয়ার্ড লাইন যে শক্তিশালী হল সেকথা বলার অপেক্ষা রাখে না। অ্যাটলেটিকো কোচও ভীষণভাবে সক্রিয় হয়েছিলেন সুয়ারেজকে দলে পেতে।

ব্লগ্রানা ক্লাবে মোটামুটি বাতিলের খাতায় চলে যাওয়ার পর একসময় জুভেন্তাসে ক্রিশ্চিয়ানো রোনাল্ডোর পাশে সুয়ারেজের খেলার সম্ভাবনা উজ্জ্বল হয়েছিল। কিন্তু প্রথমে ইউরোপিয়ান পাসপোর্টের গেরোয় সেই সম্ভাবনা ফিকে হয় কিছুটা। এরপর গত সপ্তাহে দ্বৈত নাগরিকত্ব পেয়ে গেলেও তাঁকে দলে নেওয়ার ব্যাপারে বেঁকে বসে খোদ জুভেন্তাস। সবমিলিয়ে তুরিনের ক্লাবে যোগদানের সুয়ারেজের যোগদানের বিষয়টি আর দিনের আলো দেখেনি। নয়া মরশুমে আর্থার মেলো এবং ওয়েস্টন ম্যাকেনিকে দলে নেওয়ার পর আর কোনও নন-ইউরোপিয়ান ফুটবলারকে দলে নিতে চায়নি জুভে।

সবমিলিয়ে একসময় মনে হচ্ছিল হয়তো মেসির মতোই বার্সেলোনাতে থেকে যেতে চলেছেন সুয়ারেজ। কিন্তু প্রাক-মরশুম প্রস্তুতি ম্যাচে ডাচ কোচ সুয়ারেজকে দলে না রেখে বুঝিয়ে দিয়েছিলেন বার্সেলোনাতে থাকলে হয়তো মরশুমের সিংহভাগ সময়টা বেঞ্চেই কাটাতে হবে লিভারপুল প্রাক্তনীকে। এমতাবস্থায় ঊরুগুয়ে স্ট্রাইকারের সঙ্গে চুক্তি ছিন্ন করার সিদ্ধান্ত নিয়ে নেয় বার্সেলোনা। বার্সেলোনার সঙ্গে সুয়ারেজের আরও একবছর চুক্তি থাকলেও দু’পক্ষের সম্মতিতেই সময়ের আগে ক্লাব ছাড়ছেন বার্সেলোনার ৯ নম্বর।

২০১৪ লিভারপুল থেকে যোগদানের পর সবধরনের প্রতিযোগীতা মিলিয়ে ২৮৩ ম্যাচে বার্সার জার্সিতে ১৯৮ গোল করেছেন সুয়ারেজ। ৪টি লা লিগা, একটি চ্যাম্পিয়ন্স লিগ সহ বার্সার হয়ে ১৩টি মেজর খেতাব জিতেছেন ঊরুগুয়ে স্ট্রাইকার।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।