নয়াদিল্লি: একের পর এক ইতিহাস গড়ছে ভারত। নেভি হেলিকপ্টারের দায়িত্ব পাওয়ার পাশপাশি রাফায়েল উড়বে মহিলা পাইলটের হাতে।

২০১৭ তে বায়ুসেনায় অংশ নেন বারাণসীর মেয়ে লেফট্যানেন্ট শিবাঙ্গী সিং। অম্বালায় গোল্ডেন অ্যারো স্কোয়াড্রনের অংশ হিসেবে যোগ দিয়েছেন তিনি।

২০১৭ তে যোগ দেওয়ার পর মিগ-২১ বিসন উড়িয়েছেন তিনি। রাজস্থানের বর্ডার বেস থেকে অম্বালায় এসেছেন তিনি। তিনি অভিনন্দন বর্তমানের সঙ্গেও বিমান উড়িয়েছেন।

রাফায়েল ওড়ানোর ট্রেনিং প্রায় শেষ করে ফেলেছেন এই মহিলা পাইলট। রাফায়েল জেট চালানোর জন্য তিনজন মহিলা পাইলট প্রশিক্ষণ নিচ্ছিলেন বলে খবর। এই তিনজন পাইলটই রাফায়েলের ট্রেনিংয়ের প্রাথমিক ধাপ পাশ করে গিয়েছেন।

উল্লেখ্য ভারতীয় বায়ুসেনাই প্রথম মহিলাদের সুযোগ দিয়েছে যুদ্ধ বিমান চালানোর ক্ষেত্রে। বিশ্বে ভারতীয় বায়ুসেনাতেই সর্বাধিক মহিলা ফাইটার পাইলট রয়েছেন। বায়ুসেনায় ১০ জন মহিলা ফাইটার পাইলট ও ১৮ জন নেভিগেটর রয়েছেন।

ভারতীয় বায়ুসেনাতে মোট মহিলা পাইলটের সংখ্যা ১৮৭৫। গত সপ্তাহেই প্রতিরক্ষা মন্ত্রকের রাষ্ট্রমন্ত্রী শ্রীপাদ নায়েক জানান রাফায়েল জেট চালানোর অনুমতি দেওয়া হয়েছে মহিলা পাইলটদের।

এরই মধ্যে জানা গিয়েছে, ভারতের ইতিহাসে প্রথমবার যুদ্ধজাহাজে থাকবেন দুই মহিলা অফিসার। যুদ্ধজাহাজে হেলিকপ্টার অপারেট করবেন তাঁরা। এই প্রথমবার কোনও ভারতীয় মহিলা নৌবাহিনীর যুদ্ধজাহাজে এই দায়িত্ব পেলেন। এই দায়িত্বে রইলেন সাব-লেফটেন্যান্ট কুমুদিনী ত্যাগী ও সাব-লেফটেন্যান্ট রিতি সিং।

এমনিতে ভারতীয় নৌসেনার লিঙ্গবৈষম্যের কোনও জায়গা নেই। ইন্ডিয়ান নেভি-তে বিভিন্ন পদে একাধিক মহিলা অফিসার কর্তব্যরত। কিন্তু এর আগে কখনও কোনও মহিলা অফিসারকে কোনও ভারতীয় যুদ্ধজাহাজে ডিউটিতে রাখা হয়নি। তার অবশ্য অনেকগুলি বাস্তবিক কারণ ছিল।

যেহেতু যুদ্ধজাহাজের লম্বা সফর করতে হয়। তাই মহিলাদের ক্ষেত্রে অনেক রকম সমস্যা থাকত। যুদ্ধজাহাজে মহিলা ও পুরুষদের জন্য আলাদা বাথরুমের ব্যবস্থাও থাকে না। ফলে সবদিক থেকে বিচার করলে মহিলাদের যুদ্ধ জাহাজে মোতায়েন করলে তাঁদের বিভিন্ন অসুবিধার সম্মুখীন হতে হবে। তবে সাব লেফটেন্যান্ট কুমুদিনী ও রিতিকে এই সব সমস্যার সম্মুখীন হয়তো হতে হবে না।

পচামড়াজাত পণ্যের ফ্যাশনের দুনিয়ায় উজ্জ্বল তাঁর নাম, মুখোমুখি দশভূজা তাসলিমা মিজি।