নটিংহ্যাম: ওয়ান-ডে ক্রিকেটে সাম্প্রতিক পরিসংখ্যান খুব একটা আশাব্যঞ্জক নয়। টানা হার শেষ ১০টি ওয়ান-ডে’র প্রত্যেকটিতে। তবে বিলেতের মাটিতে তাদের অতীত পরিসংখ্যান, সর্বোপরি ২০১৭ ইংল্যান্ডের মাটিতে চ্যাম্পিয়ন্স ট্রফি জয়ের কারণে বিশেষজ্ঞদের অনেকে বাজি ধরেছেন ৯২’র চ্যাম্পিয়নদের জন্য।

কিন্তু দ্বাদশ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচেই সরফরাজদের করুণ আত্মসমর্পণে নাক সিঁটকোচ্ছেন তাঁদের অনেকেই। প্রথম ম্যাচে ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ১০৫ রানে গুটিয়ে যাওয়ার পর টুর্নামেন্টে পাকিস্তানকে বাজি ধরার বিষয়ে পিছিয়ে আসছেন বিশেষজ্ঞরা। তবে দ্বাদশ বিশ্বকাপের প্রথম ম্যাচে পাকিস্তানের এই রান কি বিশ্বকাপের ইতিহাসে তাঁদের সর্বনিম্ন স্কোর, কী বলছে পরিসংখ্যান?

আরও পড়ুন: পাকিস্তানকে হেলায় হারিয়ে বিশ্বকাপ শুরু ওয়েস্ট ইন্ডিজের

পাক দলের বিশ্বকাপ পরিসংখ্যানে চোখ বোলালে দেখা যাবে ১৯৯২ বিশ্বকাপের পর ক্রিকেটের মেগা ইভেন্টে এটাই তাঁদের সর্বনিম্ন স্কোর। তবে সমস্ত বিশ্বকাপ ধরলে তালিকার প্রথমে থাকবে বিশ্বকাপ জয়ের বছরেই ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে তাঁদের ৭৪ রানের ইনিংস। অর্থাৎ, শুক্রবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিরুদ্ধে ট্রেন্ট ব্রিজে পাকিস্তানের ১০৫ রানের ইনিংসটি বিশ্বকাপের ইতিহাসে দ্বিতীয় সর্বনিম্ন। ১৯৯২ অ্যাডিলেডে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ৭৪ রানে গুটিয়ে গিয়েছিল তাঁরা।

আরও পড়ুন: নজির দিয়েই ওয়ার্ল্ড কাপ অভিযান শুরু ‘দ্য ইউনিভার্স বস’-র

বিশ্বকাপে পাকিস্তানের তৃতীয় সর্বনিম্ন স্কোরের তালিকায় যথাক্রমে থাকবে ১৯৯৯ ইংল্যান্ড বিশ্বকাপ ফাইনালে অস্ট্রেলিয়ার বিরুদ্ধে ১৩২ রানের ইনিংসটি। ওই একই রানে ২০০৭ বিশ্বকাপে দুর্বল আয়ারল্যান্ডের বিরুদ্ধে গুটিয়ে গিয়েছিল পাক ইনিংস। এরপর ২০০৩ বিশ্বকাপে কেপটাউনে ইংল্যান্ডের বিরুদ্ধে ১৩৪ রানের ইনিংসটি বিশ্বকাপের ইতিহাসে চতুর্থ সর্বনিম্ন স্কোর।

আরও পড়ুন: ইন্টার মিলানের দায়িত্ব নিলেন প্রাক্তন চেলসি কোচ

তবে শুক্রবার ওয়েস্ট ইন্ডিজের বিপক্ষে পাকিস্তানের এই হার তাঁদের ওয়ান-ডে ক্রিকেটের ইতিহাসে বল বাকি থাকার নিরীখে সবচেয়ে লজ্জাজনক। ৩৬.২ ওভার বাকি থাকতে এদিন পাকিস্তানের ছুঁড়ে দেওয়া ১০৬ রানের হাসিল করে নেয় ক্যারিবিয়ানরা। এছাড়া এদিন মাত্র ২১.৪ ওভারেই গুটিয়ে যায় পাক ইনিংস। যা বিশ্বকাপে তাঁদের সংক্ষিপ্ততম এবং তাঁদের সার্বিক ওয়ান-ডে ক্রিকেটের ইতিহাসে দ্বিতীয় সংক্ষিপ্ত।

একনজরে বিশ্বকাপে পাকিস্তানের প্রথম পাঁচ সর্বনিম্ন স্কোর:
১. ৭৪ বনাম ইংল্যান্ড – অ্যাডিলেড (১৯৯২)
২. ১০৫ বনাম ওয়েস্ট ইন্ডিজ – নটিংহ্যাম (২০১৯)
৩. ১৩২ বনাম অস্ট্রেলিয়া – লর্ডস (১৯৯৯)
৪. ১৩২ বনাম আয়ারল্যান্ড – কিংসটন (২০০৭)
৫. ১৩৪ বনাম ইংল্যান্ড – কেপটাউন (২০০৩)

সপ্তম পর্বের দশভূজা লুভা নাহিদ চৌধুরী।