নয়াদিল্লি : করোনা পরিস্থিতিতে কাজ নেই, চাকরি হারা লক্ষ লক্ষ মানুষ। উন্নত বিশ্বের দেশগুলিও অর্থনৈতিক মন্দায় ধুঁকছে (Covid affected countries)। সেখানে উন্নয়নশীল দেশগুলি, বিশেষত নিম্ন আয়ের একাধিক দেশ বিপর্যস্ত (Lower-Income Group Countries)। যার প্রত্যক্ষ প্রভাব পড়েছে মানুষের জীবন যাত্রায়। এই পরিস্থিতিতে এক বিশেষ রিপোর্ট প্রকাশ করেছে বিশ্ব ব্যাংক।

রিপোর্টে প্রকাশ নিম্ন আয়ের দেশগুলি যেমন ভারত, পাকিস্তান সহ একাধিক দেশ শিক্ষাক্ষেত্রে বাজেটে কাটছাঁট করেছে (Covid affected education)। উচ্চবিত্ত দেশগুলি যেখানে শিক্ষা বাজেট কমিয়েছে ৩৩ শতাংশ, সেখানে নিম্ন আয়ের দেশগুলি ৬৫ শতাংশ বাজেট কমিয়েছে (LIG countries slash education budget by 65%), যা বেশ উদ্বেগের। ইউনেসকোর গ্লোবাল এডুকেশন মনিটরিং-এর সঙ্গে যৌথ ভাবে এই রিপোর্ট তৈরি করেছে বিশ্ব ব্যাংক। ২৯টি দেশে সমীক্ষা চালানো হয়েছে।

নিম্ন আয়ের দেশ, যেমন আফগানিস্তান, ইথিওপিয়া, উগান্ডা, নিম্ন-মধ্য আয়ের দেশ যেমন বাংলাদেশ, মিশর, ভারত, কেনিয়া, কিরঘিজ রিপাবলিক, মরক্কো, মায়ানমার, নেপাল, নাইজেরিয়া, পাকিস্তান, ফিলিপাইনস, তানজানিয়ে, ইউক্রেন, উজবেকিস্তান, উচ্চ-মধ্য আয়ের দেশ যেমন আর্জেন্টিনা, ব্রাজিল, কলম্বিয়া, জর্ডন, ইন্দোনেশিয়া, কাজাখস্তান, মেক্সিকো, পেরু, রাশিয়া, তুরস্ক এবং উচ্চ আয়ের দেশ যেমন চিলি ও পানামা জুড়ে সমীক্ষা চালানো হয়।

রিপোর্ট বলছে, শিক্ষা ক্ষেত্রে যেভাবে বাজেট কমানো হয়েছে (Covid 19 impacts education), তা পরে ফের বাড়ানো হবে কীনা, তা নিয়ে সন্দেহ থাকছে। কারণ আর্জেন্টিনা, ভারত, পাকিস্তান, ব্রাজিল, মিশর, মায়ানমার, নাইজেরিয়া, রাশিয়াতে আগে থেকেই শিক্ষা ক্ষেত্রে ১০ শতাংশ বরাদ্দ কম ছিল।

লকডাউনের কারণে বেকারত্ব বৃদ্ধি, প্রধান প্রধান শিল্পক্ষেত্রে ক্ষমতার তুলনায় কম কাজ করা হচ্ছে। এর পাশাপাশি চাহিদা কমে যাওয়ায় বছরের শুরু থেকেই আপামর ভারতীয়দের আয় ধাক্কা খেয়েছে। ভীষণভাবে শ্রমিক নির্ভর উৎপাদন, নির্মাণ,ব্যবসা, হোটেল ইত্যাদি ক্ষেত্রে ২০২০-২১ গোটা অর্থবর্ষে সংকোচন বিরাজ করছে।

জানানো হয়েছে করোনার কারণে চলতি অর্থবর্ষে (২০২০-২১) প্রতিটি ভারতীয়ের পকেট থেকে খোয়া গিয়েছে ১০,০০০ টাকা। কারণ জাতীয় আয়ের সাপেক্ষে মাথাপিছু বার্ষিক আয়ের অংকটা কমে যাচ্ছে প্রায় ১০,০০০ টাকা। ২০ সালে শেষ হওয়া অর্থবর্ষে বার্ষিক মাথাপিছু আয় ছিল ১.০৭ লক্ষ টাকা। সেটাই চলতি অর্থবর্ষে আনুমানিক হিসাব করে দেখা গিয়েছে মাথাপিছু বার্ষিক আয়ের অংকটা কমে গিয়ে দাঁড়াচ্ছে ৯৭,৮৯৯ টাকা।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.