কলকাতা২৪x৭: ‘পথ বেঁধে দিল বন্ধনহীন গ্রন্থি, আমরা দু’জন চলতি হাওয়ার পন্থী।’
তখনও অনুরাগীদের কাছে ‘বীরুষ্কা’ হয়ে ওঠেননি বিরাট-অনুষ্কা। ফেব্রুয়ারি ২০১৪ এমনই একটা ভ্যালেন্টাইন ডে’র আবহে ভারতের নিউজিল্যান্ড সফরের মাঝে অকল্যান্ডের রাস্তায় বিরাট-অনুষ্কার গোপন ডেটিং নজর এড়ায়নি পাপারাৎজিদের। ইন্টারনেটে সেই ছবি প্রকাশ পেতেই প্রথমবারের জন্য জল্পনাটা জোরালোভাবে উসকে দিয়েছিলেন বর্তমান ভারত অধিনায়ক ও ভারতীয় ক্রিকেটের ফার্স্ট লেডি।

কিউয়ির দেশ থেকে ফিরে তর সয়নি বিরাটের। শ্রীলঙ্কায় তাঁর পরবর্তী ছবি বোম্বে ভেলভেটের জন্য তখন শুটিং সারছেন বলি ডিভা অনুষ্কা। এক মুহূর্ত সময় নষ্ট করেননি বিরাট। নতুন প্রেমে হাবুডুবু কোহলি তখন যেন ডিডিএলজে’র রাজ হয়ে অনুষ্কাকে সারপ্রাইজ দিতে উড়ে গিয়েছিলেন দ্বীপরাষ্ট্রে।

ক্রিকেট-বলিউডের কানেকশন ভারতবর্ষে চিরন্তন। সূচনাটা হয়েছিল সেই টাইগার পতৌদি ও শর্মিলা ঠাকুরকে দিয়ে। বিরাট-অনুষ্কা, হরভজন-গীতা বাসরা যার যোগ্য উত্তরসূরী বলা চলে। তালিকায় রয়েছে আরও একাধিক নাম, কিন্তু বিরাট-অনুষ্কা বোধহয় ‘এক্সেপশনালি ওয়েল’। অন্তত ভালোবাসার দিন অর্থাৎ ১৪ ফেব্রুয়ারি যারা প্রিয়জনকে নিয়ে রুপোলি পর্দায় কার্তিক-সারা অভিনীত ‘লাভ আজ কাল ২০২০’ দেখতে যাবেন, পরিচালক ইমতিয়াজ আলি রিলেশনশিপ নিয়ে তাদের নয়া কোনও টোটকা দিতে পারবেন কীনা জানা নেই। তবে বিরাট-অনুষ্কা কিন্তু ক্রিকেট কিংবা বলিউডের গন্ডি ছাড়িয়ে প্রতিমুহূর্তে আজকালকার কাপলদের রিলেশনশিপ গোল শিখিয়েই যাচ্ছেন।

এইতো ২১ ফেব্রুয়ারি উইলিয়ামসনদের বিরুদ্ধে টেস্ট সিরিজে ম্যখোমুখি হবে কোহলি নেতৃত্বাধীন ভারতীয় দল। কিন্তু তার আগে ভ্যালেন্টাইনস ডে’তে বেটার হাফকে মিস করার পাত্রী নন অনুষ্কা। তাই ইতিমধ্যেই নিউজিল্যান্ড পৌঁছে গিয়েছেন তিনি। লং ডিসটেন্স রিলেশনশিপে কাজের ছুতোয় যারা দেখা না করার বাহানা খোঁজেন, বিরাট-অনুষ্কাকে দেখে তারা শিখতেই পারেন। যাইহোক, এবার আসা যাক বিরাট-অনুষ্কার রিলেশনের সূচনাপর্বে। দু’জনের প্রেমের মৌচাকে ঢিলটা কিন্তু পড়েছিল ২০১২। একটি শ্যাম্পু ব্র্যান্ডের কমার্শিয়ালে প্রথমবার মন দেওয়া-নেওয়াটা সেরে ফেলেছিলেন দু’জনে।

এরপর সম্পর্ককে নয়া সমীকরণ দেওয়ার চেষ্টায় ছিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের পোস্টার বয় ও বলি অভিনেত্রী। অনুষ্কার প্রোডাকশন হাউসের প্রথম ছবি ‘এনএইচ১০’ র শুটিং দেখতে পরবর্তীতে রাজস্থান পৌঁছে গিয়েছিলেন কোহলি। কখনও বা আইএসএলে বিরাটের ফ্র্যাঞ্চাইজি টিমের খেলা দেখতে গ্যালারিতে বিরাটের পাশে পাওয়া গিয়েছিল অনুষ্কাকে। এতদূর অবধি তাঁদের রিলেশনশিপে সন্তর্পণেই পা ফেলছিলেন দু’জনে। কিন্তু ২০১৪ নভেম্বরে ঘরের মাঠে শ্রীলঙ্কার বিরুদ্ধে একটি ম্যাচে শতরানের পর ব্যাট উঁচিয়ে ভিআইপি বক্সে বসে থাকা অনুষ্কার উদ্দেশ্যে চুম্বন ছুঁড়ে দিলেন ভারতীয় ক্রিকেটের নয়া ব্যাটিং সেনসেশন। ব্যস, অনুরাগীদের আর বুঝতে বাকি রইল না যে ‘লাভ ইজ ইন দ্য এয়ার’।

বিরাটের ২৬তম জন্মদিনে তাঁকে সারপ্রাইজ দিতে আমেদাবাদ উড়ে গিয়েছিলেন অনুষ্কা। পালটা মার্চ ২০১৫ অনুষ্কার নিজের প্রোডাকশন হাউসের প্রথম ছবি ‘এনএইচ১০’ দেখে অভিভূত কোহলি টুইটারে পঞ্চমুখ তাঁর লাভ বার্ডকে নিয়ে। ২০১৫ পরবর্তী অধ্যায়ে বিশ্বকাপে ব্যাট হাতে বিরাটের পারফরম্যান্স আশানরূপ না হওয়ায় অনুষ্কাকে কাঠগড়ায় তোলেন অনুরাগীরা। প্রত্যুত্তরে সমালোচকদের মুখের উপর জবাব দিয়ে অনুষ্কার পাশে দাঁড়িয়েছিলেন বিরাট। এরপর ওই বছরেই দক্ষিণ আফ্রিকায় একটি গালা অ্যাওয়ার্ড অনুষ্ঠানে প্রথম রেড কার্পেটে দেখা যায় বিরাট-অনুষ্কাকে।

পরবর্তী সময়ে অনুষ্কাকে সঙ্গ দিতে লন্ডনে তাঁর ছবির শুটিংয়ে অতিথি হয়েছেন বিরাট। উলটে বিরাটের ২৭তম জন্মদিনে মোহালিতে সারপ্রাইজ ভিজিট করেন অনুষ্কা। অক্টোবর ২০১৫-তে মুম্বইয়ের এক রেস্তোরাঁ থেকে দু’জনকে একসঙ্গে বেরোতে দেখে জল্পনা আরও বাড়ে। ঘটনাচক্রে সে সময় তাঁদের সঙ্গে ছিলেন অনুষ্কার বাবা। মোটামুটি দু’জনের বিয়ের ব্যাপারে সিলমোহর পড়ে যায় ইন্টারনেটে। কিন্তু সম্পর্কের চাকা কিছুটা উলটোদিকে ঘুরতে শুরু করে নতুন বছর অর্থাৎ ২০১৬-তে। ইনস্টাগ্রামে একে অপরকে আনফলো করে দেন সেলেব কাপল। তাহলে এই কি শেষের শুরু? শুরু হয় গুঞ্জন।

ফেব্রুয়ারিতে ‘হার্টব্রোকেন’ ক্যাপশনে বিরাটের পোস্ট করা ছবি জল্পনায় ঘৃতাহুতি দেয়। পাশাপাশি বাইশ গজেও বিরাটের উইলো তখন কিছুটা নিষ্প্রভ। কারণ হিসেবে অনুষ্কাকে দোষারোপ করতে থাকেন নেটিজেনরা। আবার গর্জে ওঠেন বিরাট। ঘৃণাভরা পোস্টে নেটিজেনদের বিরাট জানান দেন, অনুষ্কা তাঁর জীবনে কেবল ইতিবাচক বার্তাই বয়ে এনেছেন। এপ্রিল ২০১৬ মনকষাকষি দূরে সরিয়ে ফের বান্দ্রার এক রেস্তোরাঁয় ডিনারে দেখা গেল ক্রিকেটার-অভিনেত্রী জুটিকে। তাঁরা যে ‘মেড ফর ইচ আদার। ফের ফটোব্লগিং সাইটে অনুষ্কাকে ফলো করা শুরু করলেন বিরাট। হাফ ছেড়ে বাঁচলেন তাঁদের অনুরাগীরা।

জুলাই ২০১৬ সুলতানের স্পেশাল স্ক্রিনিংয়ে যশরাজ স্টুডিওতে হাজির হন বিরাট। এরপর যুবরাজ সিং-হ্যাজেল কিচের বিয়েতেই হোক কিংবা উত্তরাখন্ডে ভ্যাকেশন, বারবার একাধিক জায়গায় একইসঙ্গে দেখা গিয়েছে বহুল চর্চিত এই জুটিকে। জোরালো হয় দু’জনের বিয়ের জল্পনা। না, এরপর আর পিছনে ফিরে তাকাননি দু’জনে। অনুরাগীদের দিয়ে গিয়েছেন একের পর এক রিলেশনশিপ গোল। সম্পর্ক পরিণতি পেল ২০১৭ ডিসেম্বরে। যদিও তার আগেই সেপ্টেম্বরে মান্যবরের শুটিংয়ে হৃদয় জিতে নেন বিরাট-অনুষ্কা।

ওয়েডিং ডেস্টিনেশন হিসেবে ইতালির তুসকানিকে বেছে নেন এই সেলেব কাপল। এক হয় চার হাত। সেই থেকে ক্রিকেট-বলিউডের মিশেলে অনুরাগীদের কাছে ‘বীরুষ্কা’ যেন ‘রাব নে বনা দি জোড়ি’।

পপ্রশ্ন অনেক: নবম পর্ব

Tree-bute: আমফানের তাণ্ডবের পর কলকাতা শহরে শতাধিক গাছ বাঁচাল যারা