নয়াদিল্লি: ভোটের আগে থেকেই শিরোনামে গৌতম গম্ভীর। প্রাক্তন এই ক্রিকেটার আনুষ্ঠানিকভাবে বিজেপিতে যোগ দেন ভোটের কিছুদিন আগেই। বিপুল ভোটে জয়ী হওয়ার পর তিনি বললেন, দিল্লি জুড়ে শীঘ্রই ফুটবে পদ্ম।

কংগ্রেসের অভিজ্ঞ নেতা অরবিন্দর লিং লাভলিকে প্রায় ৪ লক্ষ ভোটে হারিয়ে দিয়েছেন বিজেপি প্রার্থী গৌতম গম্ভীর। মাত্র ১৭ শতাংশ ভোট পেয়ে তৃতীয় স্থান দখল করেছেন আপের অতিশি। পূর্ব দিল্লির এই রায়ের গম্ভীরের এতটাই আত্মবিশ্বাস তৈরি হয়েছে, যে তিনি বলেই ফেলেছেন, আর ৮ মাসের মধ্যে সব জায়গায় পদ্ম ফুটবে।

উল্লেখ্য, ২০২০ সালে হবে দিল্লি বিধানসভার ভোট। আর তাতে বিজেপি ঝড় জারি থাকবে বলেই দাবি করেছেন গম্ভীর।

দিল্লি শাসন করলেও বিজেপি কার্যত ফ২আকা করে দিয়েছে আপকে। গম্ভীর বলেন, “পায়ের তলায় মাটি সরেছে অরবিন্দ কেজরিওয়ালের। ৮ মাসের মধ্যেই সিংহাসন খোয়াবেন তিনি। গত সাড়ে ৪ বছর ধরে দিল্লিতে নোংরা ছড়িয়েছেন। এ বার কমল ফুটবে।”

গম্ভীর আরও বলেন, “গাজিপুরে জমিপূরণ, পরিস্রুত জল, শিক্ষা, মহিলাদের নিরাপত্তার মতো বিষয়ে প্রতিশ্রুতি দিয়েছি। কোনও মিথ্যে প্রতিশ্রুতি দিই না।”

উল্লেখ্য, দুটি ভোটার কার্ড রাখার অভিযোগ তোলা হয় গম্ভীরের বিরুদ্ধে। এমনকি আপ নেত্রী অতিশির বিরুদ্ধে কুরুচিকরপূর্ণ প্রচারপত্র বিলি করার অভিযোগ ওঠে। যদিও গৌতম বলেন, প্রমাণ করতে পারলে রাজনীতি ছেড়ে দেবেন।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।