লখনউ: রামের পালটা কৃষ্ণ! যোগীর রাজ্যে গেরুয়ার উত্থান রুখতে কানহাইয়াকেই হাতিয়ার করলেন সপা সুপ্রিমো অখিলেশ। একইসঙ্গে উত্তরপ্রদেশের মাটিতে সমাজবাদী পার্টির উপস্থিতি জোরদার করতে ভগবান কৃষ্ণকে হাতিয়ার করলেন সপার সুপ্রিমো অখিলেশ যাদব এবং পার্টির প্রতিষ্ঠাতা মূলায়ম সিং যাদব৷

যাদব বংশ যারা নিজেদেরকে ভগবান শ্রীকৃষ্ণের বংশের উত্তরসূরি হিসেবে দাবি করে৷ অপরদিকে রয়েছে বিজেপি৷ যারা ২০২২সালের মধ্যে দেশে রাম রাজ্য প্রতিষ্ঠার পথে এগোচ্ছে৷ এমনকি উত্তরপ্রদেশের অযোধ্যায় রামমন্দিরও তৈরি হবে বলে প্রতিশ্রুতি দিয়েছে এই দল৷

কিন্তু এই সমস্ত কিছুরই বিরোধীতা করেন মুলায়ম সিং যাদব৷ রবিবার গাজিয়াবাদের মঞ্চে দাঁড়িয়ে তিনি জানিয়েছেন, রামের থেকে অনেক বেশি ক্ষমতাবান এবং জনপ্রিয় কৃষ্ণ৷ তিনি বলেন, “রাম মূলত উত্তর ভারতেই পূজিত হন৷ কিন্তু কৃষ্ণ সমগ্র দেশেই দেবতা রূপে পূজিত হন৷ এমনকি শুধু এদেশেই নয়৷ বিদেশেও কৃষ্ণকে পুজো করা হয়৷”

ভগবানের ভেদাভেদ করে এহেন মন্তব্য করতেই বিজেপির তোপের মুখে পড়লেন মুলায়াম সিং যাদব৷ রাজনৈতিক ক্ষেত্রে ক্ষমতায়নের জন্য রাম-কৃষ্ণের মধ্যেকার এই ধরণের ভেদাভেদ যথেষ্ট লজ্জাজনক বলে দাবি করল বিজেপি দলের এক উচ্চপদস্থ নেতা৷ এই ঘটনাটিকে তিনি দুর্ভাগ্যজনক বলে আখ্যা দিলেন৷ অপরদিকে, কংগ্রেসও এই ঘটনার তীব্র বিরোধিতা করে৷ কংগ্রেস দলের এক নেতা জানিয়েছেন, রাম এবং কৃষ্ণ এই দুই দেবতাই ভগবান বিষ্ণুর অবতার৷

কিন্তু হঠাৎ কেন এহেন মন্তব্য করলেন মুলায়ম সিং? অযোধ্যায় সরযূ নদীর তীরে বিজেপির রাম মূর্তি প্রতিষ্ঠার পাল্টা জবাব দিতেই কি এই কৃষ্ণের মূর্তি তৈরি করছে সপা?

সূত্রের খবর, অখিলেশ যাদব তাঁর নিজের পৈতৃক ভিটে সাইফাইতে কৃষ্ণের একটি মূর্তি গড়ার পরিকল্পনা করছিলেন৷ ২০১৯র লোকসভার আগেই বিরোধী দলের সামনে সেই মূর্তিটির উদ্বোধন করার পরিকল্পনাও করেছেন তিনি৷ ‘মুসলিম সহানুভূতি’ ট্যাগটা নিজেদের উপর থেকে দূর করতেই এই বিশেষ উদ্যোগ৷ এমনটাই মত রাজনৈতিক মহলে৷