কলকাতা: ১০ এপ্রিল চতুর্থ দফায় বেহালা পূর্বে নির্বাচন৷ ওই কেন্দ্রে বিজেপির প্রার্থী অভিনেত্রী পায়েল সরকার। শোভন চট্টোপাধ্যায়ের স্ত্রী তৃণমূল প্রার্থী রত্না চট্টোপাধ্যায় এবং সংযুক্ত মোর্চা সমর্থিত সিপিএম প্রার্থী সমিতা হড় চৌধুরীর বিরুদ্ধে লড়ছেন পায়েল। মনোনয়নের জমার সময় নিয়ম মেনে হলফলনামা দিয়েছেন পায়েল। সেখানে তিনি জানিয়েছেন, তাঁর সম্পত্তির খতিয়ান। ব্যাঙ্ক, সোনার গয়না, গাড়ি এবং অন্যান্য বিনিয়োগ নিয়ে পায়েলের মোট সম্পত্তির পরিমাণ হল ৭১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩০৭ টাকা। যার মধ্যে রয়েছে আড়াই লক্ষ টাকার সোনার গয়না, ১৬ লক্ষ টাকার একটি গাড়ি, বাকি মিউচুয়াল ফান্ড ও ব্যাঙ্ক ডিপোজিট। এছাড়াও রয়েছে তাঁর কোটি টাকার ফ্ল্যাট৷

হলফনামা অনুযায়ী, ২০১৯-২০ আর্থিক বছরে বিজেপি প্রার্থী পায়েলের মোট আয় ১৪ লক্ষ ৩৮ হাজার ৩৪৭ টাকা। মনোনয়ন জমা দেওয়ার সময় তাঁর হাতে নগদ ছিল ৫০,০০০ টাকা। সেভিংস, ফিক্সড ডিপোজিট ও টার্ম ডিপোজিট মিলিয়ে বেহালা পূর্ব কেন্দ্রের বিজেপি প্রার্থীর ৭টি অ্যাকাউন্টে ব্যাঙ্কে জমা আছে ১৩ লক্ষ ৬ হাজার ৩০৭ টাকা। এছাড়া এনএসএস ও জীবন বিমা আছে ৩৯ লক্ষ ৫২ হাজার টাকার। উল্লেখ্য, তার আগের বছর অর্থাৎ ২০১৮-১৯ এ পায়েলের বার্ষিক আয় হয়েছিল ১৮ লক্ষ ১০ হাজার ৬৫৪ টাকা।

হলফনামায় রয়েছে, পায়েল সরকারের নামে ২০১৬ সালের একটি অডি গাড়ি আছে। যার বর্তমান দাম ১৬ লক্ষ টাকা। বিজেপি প্রার্থীর আছে ৫৬ গ্রাম সোনার গয়না। যার বর্তমান দাম ২ লক্ষ ৫০ হাজার টাকা। সব মিলিয়ে পায়েল সরকারের মোট অস্থাবর সম্পত্তির পরিমাণ ৭১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩০৭ টাকা।

হলফনামায় বেহালা পূর্ব আসনের বিজেপির তারকা প্রার্থী জানিয়েছেন, তাঁর স্থাবর সম্পত্তি বলতে আনন্দপুরের ১৬০০ বর্গফুটের ফ্ল্যাট। যার বর্তমান দাম ১ কোটি ৪০ লক্ষ টাকা। অর্থাৎ, বিজেপি তারকা প্রার্থীর মোট সম্পত্তি ২ কোটি ১১ লক্ষ ৫৮ হাজার ৩০৭ টাকার। পাশাপাশি মাথার ওপর আছে ৫৯ লক্ষ ৯৪ হাজার ৩৩৬ টাকার গৃহ ঋণের বোঝা। হলফনামায় পায়েল জানিয়েছেন, তাঁর নামে কোনও ফৌজদারি মামলা নেই।

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

করোনা পরিস্থিতির জন্য থিয়েটার জগতের অবস্থা কঠিন। আগামীর জন্য পরিকল্পনাটাই বা কী? জানাবেন মাসুম রেজা ও তূর্ণা দাশ।