বহরমপুর:  তৃতীয় দফা ভোটের আগে ফের উত্তপ্ত বাংলা। বেলা বাড়তেই একাধিক জায়গা থেকে আসতে শুরু করেছে অশান্তির খবর। বালুরঘাট, মুর্শিদাবাদ সহ একাধিক লোকসভা কেন্দ্রের বিভিন্ন জায়গা থেকে আসতে শুরু করেছে অশান্তির খবর। বুথ জ্যাম, ছাপ্পা ভোটের অভিযোগ শাসকদলের বিরুদ্ধে। এরই মধ্যে তৃতীয় দফায় বাংলায় ভোটের বলি এক। তৃণমূল এবং কংগ্রেসের মধ্যে সংঘর্ষে মৃত কংগ্রেস কর্মী।

নিহতের নাম টিয়ারুল শেখ বলে জানা যাচ্ছে। ঘটনায় আরও বেশ কয়েকজন গুরুতর আহত বলে জানা যাচ্ছে। আহত সবাইকে স্থানীয় হাসপাতালে ভর্তি করা হয়েছে বলে জানা গিয়েছে। সেখানে চিকিৎসা শুরু হয়েছে।

ঘটনাকে কেন্দ্র করে ব্যাপক উত্তেজনা তৈরি হয়েছে। ইতিমধ্যে ঘটনাস্থলে পৌঁছেছে বিশাল পুলিশ বাহিনী। রয়েছে কেন্দ্রীয় বাহিনীও। কমিশনের আধিকারিকরাও গিয়েছেন ঘটনাস্থলে। ইতিমধ্যে এই বিষয়ে বিস্তারিত রিপোর্ট তলব করেছে নির্বাচন কমিশন। জেলা প্রশাসনের কাছে এই রিপোর্ট চাওয়া হয়েছে। ঘটনার খবর পেয়েই ঘটনাস্থলে পৌঁছেছেন মুর্শিদাবাদ লোকসভা কেন্দ্রের প্রার্থী তথা কংগ্রেস নেতা আবু হেনা। তিনি জানিয়েছেন, ভোটে সন্ত্রাস ছড়াতেই তৃণমূল হামলা চালাচ্ছে। গোটা এলাকা জুড়ে তৃণমূলের দুষ্কৃতিরা দাপিয়ে বেড়াচ্ছে বলে অভিযোগ কংগ্রেসের। যদিও তা অস্বীকার করেছে তৃণমূল। পালটা দাবি, কংগ্রেসের গোষ্ঠী কোন্দলের ফলেই এই ঘটনা।

জানা গিয়েছে, রানিতলা বালিগ্রামে ভোটের লাইনে দাঁড়িয়েছিলেন পিয়ারুল। সেই সময়ই সংঘর্ষ বাঁধে কংগ্রেস ও তৃণমূল কংগ্রেসের কর্মী-সমর্থকদের মধ্যে। লাঠি ও বাঁশ নিয়ে দুপক্ষ একে অপরের উপর চড়াও হয় বলেও অভিযোগ তাঁর। সেই সংঘর্ষের মাঝে পড়ে যান টিয়ারুল। বাঁশ- লাঠির আঘাতে গুরুতর জখম হন টিয়ারুল। হাসপাতালে নিয়ে যাওয়ার পথে মৃত্যু হয় টিয়ারুলের।

এলাকার মানুষের অভিযোগ, ঘটনার সময়ে কোনও পুলিশ কিংবা কেন্দ্রীয় বাহিনী ছিল না। আর তা না থাকার কারণেই এই ঘটনা বলে অভিযোগ।

প্রশ্ন অনেক-এর বিশেষ পর্ব 'দশভূজা'য় মুখোমুখি ঝুলন গোস্বামী।