স্টাফ রিপোর্টার, বারুইপুর: দিলীপ ঘোষের পর এবার পুলিশি বাধার মুখে পড়লেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। শুক্রবার ত্রাণ দিতে যাওয়ার পথে বিজেপি সাংসদের গাড়ি আটকায় পুলিশ। বাধা পেয়ে পুলিশের সঙ্গে বচসা বাঁধে বিজেপি কর্মীদের। পরে রাস্তায় বসে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন সাংসদ-সহ বিজেপি কর্মীরা।

জানা গিয়েছে, আমফান দুর্গত এলাকায় ত্রাণ দিতে যাচ্ছিলেন লকেট চট্টোপাধ্যায়। প্রথমে তাঁকে ক্যানিংয়ের তালদি এলাকায় আটকায় পুলিশ। সেখানে দীর্ঘ বচসার পর বারুইপুরের রাস্তা ধরেন তিনি। উত্তরভাগের পদ্মার মোড় এলাকায় তাঁর পথ আটকায় পুলিশ। ঘন্টাখানেক ধরে চলে পুলিশের সঙ্গে বিজেপি কর্মীদের কথা কাটাকাটি চলে। এরপরও লকেট চট্টোপাধ্যায়কে যেতে না দেওয়ায় পথে বসে পড়ে বিক্ষোভ দেখাতে শুরু করেন তিনি। রাজ্য সরকার ও পুলিশ প্রশাসনের বিরুদ্ধে স্লোগান দিতে থাকেন বিজেপি কর্মীরা। প্রায় দুই ঘন্টা পর বাধ্য হয়ে বারুইপুরের দলীয় কার্যালয়ে ফিরে যান লকেট। বারুইপুর পার্টি অফিসে কিছুক্ষণ থাকার পর কলকাতায় ফিরে যান তিনি।

পুলিশের দাবি, করোনা পরিস্থিতিতে বিজেপি সাংসদ সুন্দরবন এলাকায় গেলে লকডাউন ভাঙা হবে। রাজ্য বিজেপি নেতৃত্বের অভিযোগ, রাজ্য সরকার নিজেও ত্রাণ দেবে না। আর ক্যানিং-এ সাংসদ লকেট চট্টোপাধ্যায় ত্রাণ দিতে গেলে তাঁকেও বিভিন্ন অজুহাতে প্রথমে উত্তরভাগে, তারপর বারুইপুরে আটকায় পুলিশ।

লকেট বলেন, “রাজ্য সরকার বেছে বেছে ত্রাণ দিচ্ছে। তাই তাঁরা মানুষের পাশে দাঁড়াতে গিয়েছিলেন। কিন্তু গায়ের জোরে তাঁকে আটকে দেওয়ার চেষ্টা চলছে। রাজনীতি করার উদ্দেশ্যেই এমনটা করছে তৃণমূল সরকার।”

প্রসঙ্গত, গত সপ্তাহেই বারুইপুর এবং তমলুকে যাওয়ার পথে পুলিশি বাধার মুখে পড়েছিলেন বিজেপির রাজ্য সভাপতি দিলীপ ঘোষ। এদিন লকেটকে আটকানো হল। এ বিষয় নিয়ে কেন্দ্রকে চিঠি পাঠানো হবে বলে এদিন লকেট জানিয়েছেন।

Proshno Onek II First Episode II Kolorob TV