স্টাফ রিপোর্টার, বালুরঘাট: ক্রমশ বাড়ছে সংক্রমণ। যা নিয়ে যথেষ্ট উদ্বেগে রাজ্য সরকার। এই অবস্থায় নতুন করে লকডাউনের সিদ্ধান্ত নেওয়া হয়েছে। কনটেনমেন্ট জোনের ক্ষেত্রে কড়া লকডাউনের নির্দেশ দিয়েছে রাজ্য সরকার। বৃহস্পতিবার থেকে নয়া এই নির্দেশিকা লাগু হচ্ছে দক্ষিণ দিনাজপুরেও।

এদিকে করোনা সংক্রমণে প্রতিরোধে কাজকর্ম সাময়িক বন্ধ দক্ষিণ দিনাজপুর জেলা পরিষদের। লালা রসের নমুনা পরীক্ষায় মঙ্গলবার জেলা পরিষদের এক কর্মীর করোনা পজেটিভ ধরা পড়ে। বেশ কয়েকজন কর্মী আধিকারিকও আক্রান্ত ওই কর্মীর সংস্পর্শে চলে আসায় তাঁদের সবাইকে কোয়ারেন্টাইনে থাকার পরামর্শ দিয়েছে স্বাস্থ্য দফতর। সেইসঙ্গে সংক্রমণ প্রতিরোধে স্যানিটাইজ ও ডিজইনফেকশন করবার জন্য কাজকর্ম বন্ধ রয়েছে।

যদিও জেলা পরিষদ চত্বরে আলাদা বিল্ডিংএ অবস্থিত পূর্তদফতর যথারীতি খোলা রয়েছে। সেখানে হাতে গোনা কয়েকজন কর্মী ও ইঞ্জিনিয়ার উপস্থিত থাকলেও করোনায় সংক্রমিত হওয়ার আতঙ্কে দেখা নেই সাধারণের। স্বাস্থ্য দফতর সূত্রে জানা গিয়েছে, এই মুহুর্তে দক্ষিণ দিনাজপুরে মোট করোনা আক্রান্তের সংখ্যা ২৪৭ জন। আক্রান্তদের মধ্যে ২০১ জন ইতিমধ্যেই চিকিৎসায় সুস্থ হয়ে বাড়ি ফিরে গিয়েছেন।

অন্যদিকে করোনা সংক্রমণ প্রতিরোধে দক্ষিণ দিনাজপুরে বেশ কয়েকটি এলাকাকে কনটেনমেন্ট জোন হিসেবে ঘোষণা করেছে প্রশাসন। এলাকাভিত্তিক কন্টেনমেন্ট জোনের তালিকায় রয়েছে জেলার গঙ্গারামপুর বুনিয়াদপুর ও বালুরঘাট পুরসভা।

সেই সঙ্গে রয়েছে হিলি গঙ্গারামপুর এবং কুমারগঞ্জ ব্লকের যথাক্রমে বিনশিরা ভোঁওর ও উদয় পঞ্চায়েত এলাকাও। সূত্রের খবর বৃহস্পতিবার বিকেল ৫ টা থেকে সাত দিনের জন্য কন্টেইনমেন্ট জোনে জারি হবে কড়া লকডাউন। কন্টেইনমেন্ট জোনে লকডাউনে দোকানপাট ও কোনও কোনও পরিষেবা কতক্ষন খোলা থাকবে সেব্যাপারে বিধিনিষেধের বিস্তারিত বৃহস্পতিবার ঘোষণা করবে প্রশাসন।

পপ্রশ্ন অনেক: চতুর্থ পর্ব

বর্ণ বৈষম্য নিয়ে যে প্রশ্ন, তার সমাধান কী শুধুই মাঝে মাঝে কিছু প্রতিবাদ