নয়াদিল্লি: নির্বাচন কমিশন ছটি ভিডিও বিজ্ঞাপন প্রচারের জন্য মধ্যপ্রদেশ কংগ্রেসকে অনুমতি দিল না যার মধ্যে রয়েছে রাফাইল ইস্যু৷ কমিশনে এই ভিডিওগুলি পেশ করার পর বৃহস্পতিবার তা বাতিল হয় ৷ যদিও কংগ্রেস দলের পক্ষ থেকে কমিশনের এমন সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনার আর্জি জানান৷ পাশাপাশি অভিযোগ তোলা হয়েছে কমিশন কেন্দ্রীয় সরকারের চাপে পড়ে এমন করছে ৷

রাজ্য কংগ্রেসের মিডিয়া সেলের প্রধান শোভা ওঝা জানান, তাদের ছটি নির্বাচনী প্রচারের বিজ্ঞাপন নির্বাচন কমিশন বাতিল করে দিয়েছে৷ যদিও তাতে আপত্তিকর কিছুই ছিল না এবং যা দেখে মনে হচ্ছে এটা নির্বাচন কমিশনের উপর কেন্দ্রীয় সরকারের চাপ রয়েছে৷ অন্যদিকে নির্বাচম কমিশনের বক্তব্য, এর মধ্যে একটি বিজ্ঞাপন তালিকাভুক্ত করা যায়নি কারণ তাতে প্রতিবন্ধী মানুষকে দেখান হয়েছে৷

পড়ুন:  ভোটে জিতে ক্ষমতায় এলে নির্বাচন কমিশনকে জেলে পাঠাব : প্রকাশ আম্বেদকার

তাছাড়া কমিশন আপত্তি তুলেছে একটি বিজ্ঞাপনে যাতে দেখান হয়েছে তেরঙ্গা তরলে ভরা একটি ইঞ্জেকশন সিরিঞ্জ ৷ রাফায়েল ফাইটার জেট চুক্তির ভিডিওটি ছাড়পত্র পায়নি কেননা এই বিতর্কিত বিষয়টি সুপ্রিম কোর্টে বিচারের জন্য ঝুলে রয়েছে৷

ওঝা জানান, বিজ্ঞাপনটি ব্যাঙ্গাত্মক এবং তা আদালতের বিচারাধীন বিষয়টিতে হস্তক্ষেপ করবে না৷ পরে কংগ্রেসের এক প্রতিনিধি দল নির্বচন কমিশনের আধিকারিকদের সঙ্গে দেখা করেন এবং একটিস্মারকলিপি জমা করেন এই সিদ্ধান্ত পুনর্বিবেচনা করার জন্য৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.

কোনগুলো শিশু নির্যাতন এবং কিভাবে এর বিরুদ্ধে রুখে দাঁড়ানো যায়। জানাচ্ছেন শিশু অধিকার বিশেষজ্ঞ সত্য গোপাল দে।