স্টাফ রিপোর্টার, হুগলি: খোদ শাসক দলের পঞ্চায়েত সভাপতির বাড়িতে মিলেছে আগ্নেয়াস্ত্র৷ আলোচনা রাজ্য রাজনীতিতে৷ তবে ইতিমধ্যেই পঞ্চায়েত সভাপতির ছেলের জামিন হয়ে গিয়েছে৷ পুলিশি ভূমিকার প্রশ্ন তুলে প্রতিবাদে সরব বিজেপি৷ থানা ঘেরাও করে চলে বিক্ষোভ৷

এদিন চুঁচুড়া থানায় অবস্থান বিক্ষোভ করে বিজেপি৷ নেতৃত্বে ছিলেন গেরুয়া শিবিরের হুগলি কেন্দ্রের প্রার্থী লকেট চট্টোপাধ্যায়৷ এছাড়াও সামিল হন জেলা সাংগঠনিক সভাপতি সুবীর নাগ, হুগলি জেলা বিজেপির ওবিসি মোর্চার সাধারন সম্পাদক সুরেশ সাউ, সহ অন্যান্যরা। এদিন ঘড়ির মোড় থেকে মিছিল করে তাঁরা চুঁচুড়া থানায় আসেন। থানার সামনে বসে পরে তৃণমূল ও পুলিশের বিরুদ্ধে ব্যাপক স্লোগান দেয় বিজেপি। লকেট চট্টোপাধ্যায় চুঁচুড়া-মগড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দিলীপ দাসের গ্রেফতারির দাবি জানান৷

আরও পড়ুন: ৩০ বছরে মোদীর রাজ্য থেকে কোনও মুসলিম সাংসদ নেই

বুধবার মগরা-চুঁচুড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দিলীপ দাসের বাড়িতে অভিযান চালায় আয়কর দফতরের আধিকারিকেরা। সেই অভিযানেই এই নগদ কয়েক কোটি টাকা, প্রচুর সোনা এবং একাধিক বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র উদ্ধার করা হয়। মোট তিন আগ্নেয়াস্ত্রের মধ্যে দুটি লাইসেন্স বিহীন৷ জানা যায়, উদ্ধার হওয়া অস্ত্রগুলি জাপান এবং ইতালিতে প্রস্তুত। একই সঙ্গে ওই বাড়ি থেকে ১০ রাউন্ড গুলি এবং তিনটি কার্তুজ পাওয়া যায়।

বেআইনিভাবে আগ্নেয়াস্ত্র রাখার অভিযোগে বুধবার রাতেই পুলিশ দিলীপ দাসের ছোট ছেলে জয়প্রকাশ দাসকে গ্রেপ্তার করে। বৃহস্পতিবার তাঁকে চুঁচুড়া আদালতে তোলা হলে মহামান্য আদালত জয়প্রকাশের জামিনের আবেদন মঞ্জুর করেন। বেআইনি অস্ত্র রাখার মামলায় কীভাবে প্রথম দিনেই জামিন হয়ে গেল? প্রশ্ন তোলে বিজেপি৷

আরও পড়ুন: সারদা’কে হাতিয়ার করেই অসমে বিজেপি’কে বিঁধলেন মমতা

প্রতিবাদে এদিন আন্দোলনে নামে তারা৷ পুলিশ শাসক দলের হয়ে কাজ করছে বলেই এই পরিণতি বলে অভিযোগ তাদের৷ চুঁচুড়া থানা ঘোরাও করে এদিন পদ্ম শিবিরের রাজ্য মহিলা মোর্চার নেত্রী দাবি করেন, ‘‘এই ঘটনাই দেখিয়ে দিল রাজ্যের আইন শৃঙ্খলার কী অবস্থা৷ শাসক দলের নেতাদের বাড়িতে হানা দিলেই এইসব পাওয়া যাবে৷ বেআইনী অস্ত্র পাওয়া গেলে অভিযুক্তদের জামিন হয়ে যাচ্ছে৷ বাংলাতেই এটা সম্ভব৷ অবিলম্বে মগরা-চুঁচুড়া পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতি দিলীপ দাসকে গ্রেফতার করতে হবে৷’’

ভোটের আগে, লোকসভা নির্বাচনের মুখে পঞ্চায়েত সমিতির সভাপতির বাড়িতে আয়কর অভিযানে বিদেশি আগ্নেয়াস্ত্র সহ টাকা-সোনা উদ্ধারের ঘটনায় অস্বস্তিতে তৃণমূল। সমগ্র ঘটনার পিছনে রয়েছে কেন্দ্রের শাসক বিজেপির ষড়যন্ত্র৷ দাবি স্থানীয় তৃণমূল নেতাদের৷ তবে বিজেপির এদিনের আন্দোলনেই স্পষ্ট হাল ছাড়বে না পদ্ম শিবির৷

লাল-নীল-গেরুয়া...! 'রঙ' ছাড়া সংবাদ খুঁজে পাওয়া কঠিন। কোন খবরটা 'খাচ্ছে'? সেটাই কি শেষ কথা? নাকি আসল সত্যিটার নাম 'সংবাদ'! 'ব্রেকিং' আর প্রাইম টাইমের পিছনে দৌড়তে গিয়ে দেওয়ালে পিঠ ঠেকেছে সত্যিকারের সাংবাদিকতার। অর্থ আর চোখ রাঙানিতে হাত বাঁধা সাংবাদিকদের। কিন্তু, গণতন্ত্রের চতুর্থ স্তম্ভে 'রঙ' লাগানোয় বিশ্বাসী নই আমরা। আর মৃত্যুশয্যা থেকে ফিরিয়ে আনতে পারেন আপনারাই। সোশ্যালের ওয়াল জুড়ে বিনামূল্যে পাওয়া খবরে 'ফেক' তকমা জুড়ে যাচ্ছে না তো? আসলে পৃথিবীতে কোনও কিছুই 'ফ্রি' নয়। তাই, আপনার দেওয়া একটি টাকাও অক্সিজেন জোগাতে পারে। স্বতন্ত্র সাংবাদিকতার স্বার্থে আপনার স্বল্প অনুদানও মূল্যবান। পাশে থাকুন।.